HEADLINE
বল্লীতে বজ্রপাতে শিশুর মৃ’ত্যু ভোমরা স্থলবন্দরে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের কোনভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না বলাডাঙ্গায় জমি সংক্রান্ত বি’রো’ধে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খু’ন বৈষম্যের প্রতিবাদে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি সাতক্ষীরার উন্নয়ন ইস্যুতে ৫ এমপি’কে এক টেবিলে বসার আহবান সাতক্ষীরায় তামাক কোম্পানির বিজ্ঞাপণে সয়লাব, টার্গেটে কিশোর ও তরুণ সাতক্ষীরায় বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালন সাতক্ষীরার পর এবার মাগুরার সিভিল সার্জনের বিরুদ্ধে জনবল নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ! কলারোয়ায় এক কৃষকের ঝু’ল’ন্ত লা’শ উ’দ্ধা’র কলারোয়ায় স্বামীর পুরুষা’ঙ্গ কে’টে দ্বিতীয় স্ত্রী’র আ’ত্ম’হ’ত্যা
সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৯:১৬ অপরাহ্ন

ভন্ড বাটপার সুশীলদের হাতে কেনো সমাজের চেতনার ঝান্ডা!

রাজু ঘোষ / ৬৫৮
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ২৫ আগস্ট, ২০২২

রাজু ঘোষঃ এদেশের এই সমাজের নষ্টের বা ক্ষতির মূল ওস্তাদ সুশীল রুপী গডফাদারেরা। যারা আদর্শিক মানুষ গুলাকে কে দিনের পর দিন ব্যবহার করে পুরো সমাজ ব্যবস্হা কে ধ্বংস করে ফেলেছে। যদি সে ধার্মিক সুশীল হয় তবে সে আপনাকে ধর্মের জ্ঞান দিবে সুমুধুর কণ্ঠে অথচ সে নিজেই অর্ধামিক। যদি সে উচ্চমাপের কর্মকর্তা হয় তবে সে সুদ ঘুষ এসবের বিপরীতরূপ সম্পর্কে বোঝাবে! কিন্তু উপরি ইনকামের জন্য মানুষ তাকে শ্রদ্ধা করে। এজন্য তার নাম ডাক এত, যদি সে আইনজ্ঞ হয় আপনাকে উপদেশ দিবে আইন অমান্য না করার জন্য অথচ নিজে আইনের সমস্ত ধারা বিলুপ্তি করে তার অবৈধ ইনকামে সে তার স্ট্যাটাস বজায় রাখছে এভাবে প্রতোক সেক্টরে আজ ভঙ্গুর মানুষদের জয়জয়াকার। তাদের সিন্ডিগেটের বাইরে যেসব মানুষ সমাজ পরিবর্তনের স্বপ্ন নিয়ে কাজ করে তারা সেসব সেক্টরে তাদের সহকর্মীদের কাছে নিতান্ত বোকা হিসাবে গণ্য হয়। আচার আচারনে দেবতা হলেও মনের ভিতরে থাকে এদের দ্বিচারিতা আর এই মুখোশ পরেই তারা আজকের এই পচনশীল সমাজের রুপকার।
তারা সব সময় নিজেদের ধরা ছোয়ায় বাইরে রেখে নিজেদের সেফটি ফার্স্ট নীতি গ্রহন করে এই সমাজে সমাদৃত হয়। এটাই তাদের আসল পরিচয়। দিনবদলের স্বপ্ন নিয়ে যেসব মানুষ একই পথের পথিক হয় তারা হয় বোকা না হয় মানুষের চোখে বেয়াদব কিংবা বখাটে হিসাবে আবির্ভুত হয় অথচ এসব তৈরি করার কারিগর ঐসব সুশীল রুপী ভন্ড গডফাদার রা। যারা সমাজকে বিভক্তি করে মানুষ কে ব্যবহার করে জনগণের সম্পদ লুটতরাজ করছে দেদারচ্ছে। মানুষের সচেতনাহীনতা কিংবা সুনাগরিক হওয়ার দায়িত্ব বোধ কমে যাওয়ায় তাদের রুপরেখা বাস্তবায়ন অনেক দীর্ঘস্হায়ী হয়। অর্থ দিয়ে সবকিছুর বিচার করলে সমাজের সামাজিকতা থাকে না, বিচার থাকে না, অনিয়ম নিয়ম হয়, এটাই ধ্বংসের কারণ হয়। অর্থ মানুষের জীবন ধারণের জন্য অবশ্যই প্রয়োজন সমাজ বদলানোর জন্য সেটা আবশ্যিক। তার অর্থ এই নয় যে অর্থশালী কিংবা ক্ষমতাশালী মানুষেরা আইনের বাইরে সমাজের বাইরে, বিচার হওয়া উচিত অন্যায়ের দূনীর্তির ঘুষের অপরাধের, ছোট ছোট টোকাই চোরদের সাজা দিয়ে সমাজ পরিবর্তন হয় না। এর জন্য মুখোশধারী সুশীলরুপী ঐ গডফদারদের বিচার করলে। আইন আসলেই সবার জন্য বলে বিবেচিত হবে। নতুবা কালের বিবর্তনে চোখ থাকিতে অন্ধ প্রজন্ম তৈরি হবে। সেটার ও অবক্ষয় চোখের সামনেই ঘটতে থাকবে। বস্তুত যারা সমাজ পরিবর্তনের জন্য আসলেই আর্দশিক রাজনীতি করে সামাজিক পরিবর্তনটা তাদের হাত ধরেই হওয়া উচিত। কোন মাস্তান তৈরির গডফাদার দের দ্বারা সমাজ প্রবাহিত হলে তার নৈতিক বিপর্যয় ঘটে। প্রত্যেক সেক্টরে মানুষের দৈনন্দিন জীবনে এমন কোন সেক্টর নাই যেখানে এমন দ্বিচারিতা র মানুষ নাই আমাদের উচিত তাদের মুখোশ উন্মোচন করে সমাজ পরিবর্তনে যারা সত্যিই পরিবর্তন চাই তাদের সাহায্য করা। নৈতিক মানুষদের জয় হোক। জয় বাংলা

লেখকঃ রাজু ঘোষ, ছাত্র নেতা


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ