HEADLINE
সাতক্ষীরার উৎপাদিত টমেটো যাচ্ছে রাজধানী’সহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় সাতক্ষীরা সীমান্তে অপরাধ দমনে বিজিবি ও বিএসএফ এর পতাকা বৈঠক ঝাউডাঙ্গা হাইস্কুল জামে মসজিদের ওযুখানা নির্মাণ কাজ উদ্বোধন শ্যামনগরে বিদ্যুৎস্পর্শে কৃষকের মৃত্যু কাশ্মিরি ও থাইআপেল কুল চাষে সফল সাতক্ষীরার মিলন ঝাউডাঙ্গা সড়কে বাস উল্টে ১০জন আহত ঝাউডাঙ্গায় জমকালো আয়োজনে শুরু হচ্ছে পৌষ সংক্রান্তি মেলা কালিগঞ্জে শীতার্ত মানুষের পাশে ”বিন্দু” মাদ্রাসা শিক্ষক শামসুজ্জামানের বিরুদ্ধে ফের ছাত্র বলাৎকারের অভিযোগ স্বামী বিবেকানন্দ দর্শন আমাদের মুক্তির পথ : সাতক্ষীরায় ১৬০তম জন্মবার্ষিকী উৎসবে আলোচকরা
শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৬:৫০ অপরাহ্ন

শ্যামনগরের শিক্ষা অফিসারের বিরুদ্ধে নারী শিক্ষিকাকে অনৈতিক প্রস্তার দেওয়ার অভিযোগ

আব্দুল কাদের, শ্যামনগর / ৩৫৯
প্রকাশের সময় : শনিবার, ২৪ ডিসেম্বর, ২০২২

সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিজ মিয়া ও প্রধান শিক্ষক নুর আলীর চক্রান্তে বলির পাঠা হতে যাচ্ছেন এক নারী শিক্ষক। অভিযোগ পাওয়া গেছে, উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওই নারী শিক্ষককে কু প্রস্তাব দেয়। উক্ত প্রস্তাবে সাড়া না পেয়ে উপজেলা শিক্ষা অফিসার ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে ব্যবহার করেন। পরিনতি হিসেবে বলির পাঠা হতে যাচ্ছেন ওই নারী শিক্ষক। জানা গেছে, সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার ৭৯ নং অন্ত্যাখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এক নারী শিক্ষক উপজেলা শিক্ষা অফিসারের কু প্রস্তাব প্রত্যাখান করে উর্ধতন কতৃপক্ষের নিকট লিখিত অভিযোগ দায়ের করায় গাত্রদাহ শুরু হয়। এই ঘটনা ধামাচাপা দিতে বিভিন্ন ভাবে চাপ সৃষ্টি অব্যহত রেখেছেন বলে জানা যাচ্ছে।

ঘটনার বিবরণ ও লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ৭৯ নং অন্ত্যাখালি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভুক্তভোগী নারী শিক্ষক গত মার্চে শেষ সপ্তাহে নৈমিত্তিক ছুটির আবেদন করেন প্রধান শিক্ষক নুর আলীর কাছে। কিন্তু প্রধান শিক্ষক নুর আলী ওই নারী শিক্ষকের ছুটি না মঞ্জুর করেন। এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসারের নির্দেশ মোতাবেক প্রধান শিক্ষক নুর আলি ওই শিক্ষককে অনুপস্থিত লেখেন। এর পরে উপজেলা শিক্ষা অফিসার কতৃক কারণ দর্শনের নোটিশ প্রাপ্ত হন। এর পর প্রধান শিক্ষক পরামর্শ দেন আপনি উপজেলা শিক্ষা অফিসারের অফিসে একা গিয়ে দেখা করেন ঝামেলা মিটে যাবে। প্রধান শিক্ষক নুর আলীর পরামর্শ অনুযায়ী ওই নারী শিক্ষক উপজেলা শিক্ষা অফিসে শিক্ষা অফিসার রফিজ মিয়ার কক্ষে অনুমতি নিয়ে প্রবেশ করেন। এসময় অফিসার রফিজ মিয়া ওই নারী শিক্ষককে তার পাশের চেয়ারে বসতে বলেন। তিনি অফিসারে সম্মান রক্ষার্থে পাশের চেয়ারে বসলে রফিজ মিয়া কুপ্রস্তাব দেন। ওই ঘটনায় তিনি লজ্জা পেয়ে উঠে যেতে চাইলে তাকে শারীরিক ভাবে লাঞ্ছিত করেন বলে লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। এই ঘটনায় ওই শিক্ষক মানসিক ভারসাম্যহীন হয়ে পড়েন বলে ভুক্তভোগী নারী শিক্ষকের পরিবার সূত্রে জানা গেছে। ভুক্তভোগী নারী শিক্ষকের বক্তব্য অনুযায়ী বিষয়টি ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে প্রধান শিক্ষক প্রতিনিয়ত মানসিক চাপে রেখেছেন তাকে। লিখিত অভিযোগ সূত্রে আরও জানা গেছে, সম্প্রতি প্রাক- প্রাথমিকের বই চুরি অপবাদ দিয়ে শিক্ষার্থীদের সামনে ওই নারী শিক্ষককে লাঞ্ছিত করেন প্রধান শিক্ষক নুর আলী।

প্রধান শিক্ষক প্রভাবশালী হওয়ায় তার বিরুদ্ধে মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন না কেউ। ইতিমধ্যে প্রধান শিক্ষক ওই নারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে অভিভাবকদের ভুল বুঝিয়ে লিখিত অভিযোগ নিয়ে এসেছে। ওই লিখিত অভিযোগের কপি শিক্ষা অফিস বরাবর পাঠানো হয়েছে বলে জানা গেছে। প্রধান শিক্ষক বিভিন্ন সময়ে ওই নারী শিক্ষককে হুমকি দেওয়ায় তিনি চাকরি আতংকে দিন কাটাচ্ছেন। ঘটনাটি বর্তমান সময়ে বিদ্যালয় ছড়িয়ে পড়ায় ওই নারী শিক্ষক অনেকটা বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছে। প্রকৃত ঘটনা আমলে এনে প্রকৃত দোষীদের উপযুক্ত শাস্তি দাবি করেছেন এলাকা বাসি।

শ্যামনগর উপজেলার শিক্ষা অফিসার মোঃ রফিজ মিয়া বলেন ওই নারী শিক্ষকের বিরুদ্ধে আমার কাছে আরও অভিযোগ আছে। আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ করেছে সব মিথ্যা।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ