HEADLINE
পরীক্ষার সময় পরিবহন চলা নিয়ে নিশ্চিত নয় জবির পরিবহন পুল উপকূলে সংকট বাড়ছে, সংকট সমাধানে প্রয়োজন সুপেয় পানি সহ টেকসই বেড়িবাঁধ খলিশাখালিতে প্রতিবাদ সমাবেশ, প্রশাসনের সহযোগীতা চান ভূমিহীনরা একটি ছবি হয়ে উঠেছে আদর্শ ও অনুপ্রেরণা উৎস : তথ্য প্রতিমন্ত্রী খুলনায় ইউপি ভবন থেকে অস্ত্র-গুলিসহ গ্রেফতার ৩ আশাশুনিতে পারস্পরিক শিখন প্রাতিষ্ঠানিকীকরণে অভিজ্ঞতা বিনিময় সফর বল্লীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা কেশবপুরের বিল খুকশিয়ায় মাছের ঘেরের বেড়িতে তরমুজ চাষে কৃষকের সাফল্য সাতক্ষীরা রেঞ্জের অভয়ারণ্য থেকে ৩ জেলেসহ মাছ ধরা ট্রলার আটক অসহায় মানুষের পাশে “আল নূর” পরিবার
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:১৩ অপরাহ্ন

উন্নত বাংলাদেশ গড়তে খোলা বাজার অর্থনীতি অপরিহার্য

জহিরুল ইসলাম শাহিন / ১০০
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২৪ আগস্ট, ২০২১

বিশ্বের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার ক্ষেত্রে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় হচ্ছে খোলা বাজার অর্থনীতি। অর্থনীতিই হচ্ছে সমাজ পরিবর্তনের এবং পারিবার্শি¦ক অবস্থার উন্নয়নের মূল হাতিয়ার । সুতরাং আমরা স্পস্ট ভাষায় বলতে পারি অর্থনীতির যে কোন পরিবর্তন আর্থ সামাজিক অবস্থা ও আমাদের সামগ্রিক চিন্তা ভাবনার উপর প্রভাব ফেলে। অর্থনীতির খোলা বা মুক্ত বাজার মুখী পরিবর্তন জীবনের সর্বস্তরে প্রভাব বিস্তার করছে। সারা দুনিয়ার দ্রæত পরিবর্তনশীল অর্থনীতিতে খোলা বাজার অর্থনীতির যে প্রভাব পড়েছে তার সুবিধা অসুবিধা সম্পর্কে আগ্রহশীল মানুষ নানা চিন্তা ভবনার প্রকাশ ঘটাচ্ছে। পৃথিবীর প্রত্যেকটি দেশেই ভৌগলিক সীমানার মধ্যে তার বাজার অবস্থান এবং ঐ বাজার কে কেন্দ্র করে পন্যের যাবতীয় ক্রয়, বিক্রয়, আয়, ব্যয়, দাম বা পন্যের মান নির্ধারন করা হয়ে থাকে। কোন দেশের পরিপ্রেক্ষিতে একটি নির্দিষ্ট মূল্যের উদ্ভব হলে তাকে বাজার বলে এবং বাজার অর্থনীতি বলতে এমন এক অর্থনৈতিক প্রক্রিয়াকে বুঝায় যা মূল্য নির্ধারনের ক্ষেত্রে বাজারের চাহিদা ও পন্য সরবরাহের উপর নির্ভরশীল। বাজারের এই স্বাভাবিক চাহিদা ও সরবরাহের ওপর নিয়ন্ত্রনহীনতাই খোলা বাজারের স্বরূপ। খোলা মানে নিয়ন্ত্রনহীনতা। বাজার অর্থনীতিতে ও স্বাভাবিক শক্তিগুলোর ওপর কোন নিয়ন্ত্রন থাকে না। এটি এমন এক অর্থনৈতিক প্রক্রিয়া যা পন্য বা সেবার দাম নির্ধারনের দায়িত্বটা বাজারের শক্তিসমূহ ও সরবরাহের হাতে ছেড়ে দেওয়া হয়। অর্থাৎ চাহিদা ও যোগানের পারস্পারিক ক্রিয়া প্রতিক্রিয়ার দ্বারা পন্যের মূল্য নির্ধারিত হয়। সাধারনত কোন বাধা বিপত্তি ছাড়াই একটি দেশের ভিতরে বা বাইরের যে কোন ধরনের পন্য বেচা কেনার সুবিধা বা সুযোগ বা বিধি ব্যবস্থা বজায় রাখার নাম খোল বাজার বা মুক্ত বাজার। এই জাতীয় বাজারের মুল ভিত্তি হচ্ছে পূর্ন প্রতিযোগিতা খোলা বাজার অর্থনীতি কোন বাহ্যিক চাপ সরকারী বা বেসরকারী কোনো বিশেষ হস্তক্ষেপ বা নিয়ন্ত্রন এবং সরবরাহকে অগ্রাহ্য করে যে কোন কৃত্রিম প্রভাব মান্য করেনা। খোলা বাজার অর্থনীতির মূল শর্ত হল ক্রেতা বিক্রেতার মধ্যে সমঝোতা, পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস ও আস্থা স্থাপন করা। সম্পূর্ণরূপে পন্য সবরাহ বা উৎপাদন এবং ব্যবসা করার সুযোগ সৃষ্টি করা। এটা যেমন একদিকে বাজার শক্তি সমুহের প্রতি নিরপেক্ষতা, মান্যতা তেমনি অন্য দিকে অর্থনীতির চাকাকে স্বাভাবিক গতির ওপর ছেড়ে দেওয়ার একটি দৃষ্টিভঙ্গি। সুতরাং খোলা বাজার অর্থনীতির মূল ভিত্তি হচ্ছে পূণৃ প্রতিযোগিতার স্বীকৃতি এবং ক্রেতা ও বিক্রেতা সার্বভৌমত্ব। খোলা বাজার অর্থনীতিতে অস্বাভাবিক মুনাফার কোন সুযোগ নেই। সুতরাং এ বাজারে ক্রেতা শোষন অন্য যেকোন বাজার পদ্ধতির চেয়ে কম। অন্য যে কোন বাজারের তুলনায় এ বাজারে সম্পদের সমাবেশ ঘটে বেশী এবং সম্পদের এবং সম্পদের অধিকতর সদ্ব্যবহার নিশ্চিত হয়। ভোক্তা সল্প মূল্যে বিদেশী পন্য ভোগের সুযোগ পায়। এতে বানিজ্য ক্ষেত্র অনেকাংশে সম্প্রসারিত হয়। খোলা বাজার অর্থনীতিকে স্বতঃস্ফূর্ত ও স্বাভাবিক গতিতে চলতে দিলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে সমাজের উৎপাদন গুলো মুক্ত বাজারের দিকে যাত্রা করে। মূলত খোলা বা মুক্ত বাজার হচ্ছে উত্তম দিকে এক অনিবার্য যাত্রা, পরমার্থ অর্জন নয়, ক্রেতা এবং বিক্রেতার মধ্যে আস্থাভাজন সম্পর্ক মুক্ত বাজার অর্থনীতির একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। এখানে একজন ব্যক্তির সন্তুষ্টিকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হয়। ব্যক্তি স্বার্থই হচ্ছে এর মূল চালিকা শক্তি। খোলা বাজার অর্থনীতিতে দেশী বিদেশী পন্যের সমাবেশ ঘটে, ফলে পন্যের দাম কম থাকে। আমাদের দেশে মুক্ত বাজার অর্থনীতি সম্পর্কে অর্থনৈতিক মহল ও সাধারন জনমনে পরস্পর বিপরীতমূখী ধারনার জন্ম নিয়েছে এটা অস্বাভাবিক কিছুই নয়। কেননা বর্তমান সময়ের অর্থনীতিতে এ খোলা বাজার অথর্নীতির ধারনা খুব বেশী দিনের নয়। তদুপরি আমাদের দেশ ৩য় বিশ্বের দূর্বল অর্থনীতির একটি গরীব দেশ। এদেশের অনেক বিশিষ্ট জনরা মনে করেন মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতি চালু হলে দেশের বিভিন্ন শিল্প কারখানা, মিল বা উৎপাদন প্রতিষ্ঠান গুলো একেবারে ধ্বংস হয়ে যেতে পারে। খোলা বাজার মানেই অন্য দেশের শিল্পের স্বার্থরক্ষা এবং পন্যের বাজার সৃষ্টি করা। খোলা বাজার অর্থই স্বদেশী পন্য বর্জন এবং বিদেশী পন্য গ্রহন। আবার খোলা বাজার অর্থই অনুন্নত দেশের শিশু শিল্পগুলোকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দেওয়া এবং এরই ফল স্বরূপ বেকারত্ব বৃদ্ধি। এ সবই হচ্ছে খোলা বাজারের বিপক্ষে কথা বার্তা। কিন্তু আবার বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে অনেকেই মনে করেন খোলা বা মুক্ত বাজার অর্থনীতিকেই আমাদের দেশের জন্য কল্যান বয়ে আনতে পারে। সুতরাং মুক্ত বাজার অর্থনীতি এক দক্ষতার প্রক্রিয়া অর্থনৈতিক নীতিমালার দিক থেকে। এ বাজারে সম্পদের অধিকতর সদ্ব্যবহার সুনিশ্চিত হয়। বেশীরভাগ ক্ষেত্রে দাতা দেশগুলির উপর নির্ভরশীল আমাদরে দেশের অর্থনীতি। আর আমাদের অর্থনীতি ঋন নির্ভর অর্থনীতি। সমগ্র পৃথিবী যেখানে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির চরম সীমায় পৌছে যাচ্ছে আমরা সেখানে নানা ধরনের নীতির বেড়াজালে আবদ্ধ হয়ে আছি। সুতরাং একথা নিশ্চিন্তে বলা যায় মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতির সঠিক ও পূর্ন চর্চা ও অনুশীলন করতে পারলে বাংলাদেশের অর্থনীতিতে অনেক সুবিধা বয়ে আনতে পারে। জন সাধারন তথা ভোক্তা সাধারনত তুলনামূলক ভাবে অতি অল্প মূল্যে বিভিন্ন দেশের পন্য সামগ্রী ক্রয় করতে পারবে। খোলা বাজার অর্থনীতিতে দেশের সম্পদ সমূহের সুষম বন্ঠনের পথ সুগম করতে পারে। বানিজ্যে নিয়োজিত সকল পক্ষই সফলতা পায়। দেশের নতুন নতুন পন্যের বাজার সৃষ্টি হবে মুক্ত বাজার অর্থনীতির ফলে। এতে রপ্তানী আয় বৃদ্ধি পেয়ে দেশের অর্থনীতি শক্তি শালী হবে। দেশ অর্থনীতির দিক দিয়ে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে যাবে দেশের শিল্পায়ন ও বানিজ্যিকরন বৃদ্ধি পেয়ে আন্তর্জাতিক সহযোগিতা বৃদ্ধি ও আন্তর্জাতিক শান্তিরক্ষার পথ উন্মুক্ত হবে। ক্রেতা ও বিক্রেতাদের পূর্ণ স্বাধীনতার প্রতিযোগিতা বন্ধ হবে। আবার একথাও ঠিক মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতিতে সুবিধার পাশাপাশি কতিপয় কিছু অসুবিধা ও আছে যা মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতির বিকাশের অন্তরায় হিসাবে কাজ করে। মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতি বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলে ও অনুন্নত দেশ গুলোতে আপাত দৃষ্টিতে শিল্পায়নের পথে বাধার সৃষ্টি করে। অবাধ বানিজ্যের সুযোগ নিয়ে শিল্পোন্নত দেশগুলি অনুন্নত দেশ গুলোর বাজার দখল করবে। বাংলাদেশে যদি মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতি চালু হয় পরিপূর্ণভাবে তাতে ক্ষুদ্র ও কুঠির শিল্প এবং শিল্প কারখানার, প্রভৃতি ক্ষতি সাধিত হতে পারে বলে ধারনা করা হয়। শিল্পখাত গুলোকে ধ্বংস করা মানে দেশের বেকারত্ব বৃদ্ধি করা। মোর্দ্দা কথা হচ্ছে খোলা বাজার অর্থনীতির সুফল পেতে হলে আমাদের দেশের জন্য দরকার বাস্তবমুখী ও উন্নয়ন মুখী কিছু অর্থনৈতিক পরিকল্পনা ও তা বাস্তবায়নের প্রচেষ্টা বিনিয়োগকারী দের বিনিয়োগ উপযোগী পরিবেশ এবং তাদের পুজির নিরাপত্তা রক্ষা করা। সামাজিক সন্ত্রাস, মাস্তানি, চাঁদাবাজি, শ্রমিক অসন্তোষ, স্বজনপ্রীতি, দুর্নীতি এবং আমলা নির্ভরতা ইত্যাদি বন্ধ করতে হবে। শুধুমাত্র তখনই মুক্ত বা খোলা বাজার অর্থনীতি সফলতার দিকে এগিয়ে যেতে পারবে এবং আজকের প্রতিযোগিতার বাজারে টিকে থাকতে পারবে। উৎপাদন ব্যয় কমানোর ব্যবস্থা গ্রহন করার পাশাপাশি গুনগত মানে ও পন্য প্রথম শ্রেনীর হতে হবে। অন্যান্য রাষ্ট্রের সাথে সুগভীর সম্পর্কও গড়ে তুলতে হবে। শুধু মাত্র তখনই বাংলাদেশ বিশ্বে মাথা উচু করে দাড়াতে পারবে এবং একটি স্বয়ংসম্পূর্ন উন্নত দেশে পরিনত হবে আমাদের এই দেশ বাংলাদেশ।

লেখকঃ জহিরুল ইসলাম শাহিন
সহকারী অধ্যাপক
বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজ
কলারোয়া, সাতক্ষীরা।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ