শাহজাদাতে লেখা কবিতা *বেলা ফুরাবার আগে*

শাহজাদাতে লেখা কবিতা *বেলা ফুরাবার আগে*

বিশ্ব যখন থমকে আছে করোনার তান্ডবে,

বাঙালি তখন ছড়াবে গুজব হই হুল্লোড় ভরে।

সবাই যখন সময় কাটায় মৃত্যু মিছিল ভয়ে,

বাঙালি তখন সময় কাটায় কক্সবাজার গিয়ে।

সবাই যখন সময় কাটায় সৃষ্টিকর্তার ভয়ে,

বাঙালি তখন সময় কাটায় অনুজীবের ভয়ে।

করোনা নিয়ে মানব জগৎ সদা শঙ্কায় চলে,

বাঙালি তখন হল্লা করে করোনা থেকে শক্তিশালী বলে।

দুদিন পরে নিজের পেটে পড়বে কি তার ঠিক নাই,

তারাই আবার ঘটা করে সমালোচনায় যায়।

অবস্থা তোমার নিয়ন্ত্রের বাইরে গেছে যখন,

এখন ভেবে লাভ নাই ভাই,ভাববার ছিলো তখন।

নুসরাত হত্যা,রিয়া হত্যা, রিফাত হত্যার ডাক,

আইন কানুন আছে যতো, যাক সে চুলোয় যাক।

মানুষ রুপী কাক শকুনে ভরে গেছে দেশটা,

কাক শকুনে ভাব ধরেছে লুকিয়ে আসল বেশটা।

আমার চোখের কালশিটেতে রক্তে ভেজা কান্না,

পশ্চিমার দিকে তাকিয়ে দেখো শুধুই লাশের বন্যা।

আজকে চায়নার দিকে তাকিয়ে দেখো,

জার্মানির দিকে তাকিয়ে দেখো,

যদি পারো(?) শেষ বেলাতেও কিছু শেখো।

নারী হত্যা,শিশু হত্যা,মানুৃষ হত্যার ডাক,

বলতে গেলেই মামা খালু রাইফেল করে তাক।

সোনার মাঠে ঢুকেছে শুয়োর,কে তাড়াবে তাকে,

যার বানালাম মাঠের মোড়ল,সেইতো শুয়োর ডাকে।

শুয়োর ডাকে,শকুন ডাকে,আরো ডাকছে কাক,

এতো বাপু দেশের টাকা,যার ইচ্ছা সে খাক।

আইন আছে বিচার নাই,হত্যা আছে মামলা নাই,

ব্যাংক আছে টাকা নাই,দেশবাসীর ঘুম নাই।

তাইতো,এক প্রতিবাদী মিছিলের জয়গানে আমি এসেছি,

ধরতে পারিনি মশাল তবুও, ছোট্ট হাত খানি তুলেছি।

মিথ্যের আবরনে ঢেকে আছে মুখ,

অভাগীর হাহাকারে ফেঁটে যায় বুক।

যতই তোমরা দেখাও খেলা,

তিনি (আল্লাহ)দেখাবেন শেষের বেলা।

তাইতো ডেকে বলি…….হে পথিক,

ফিরে এসো নীড়ে,বেলা ফুরাবার আগে।

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

%d bloggers like this: