কয়রায় অভিযুক্ত মামলার আসামীরা বাদীকে জীবননাশের হুমকী দেওয়ার অভিযাগ

কয়রায় অভিযুক্ত মামলার আসামীরা বাদীকে জীবননাশের হুমকী দেওয়ার অভিযাগ

কয়রা প্রতিনিধিঃ কয়রায় পল্লীতে চিংড়ীঘর দখল কারীদের বিরুদ্ধে মামলা করায় আসামীরা বাদীকে জীবননাশের হুমকীর অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি কয়রা থানার মহেশ্বরীপুর ইউনিয়নের বানিয়াখালী গ্রাম। উল্লখ্যে বিগত ২১ মার্চ চদন রায়ের ৮ বিঘা চিংড়ীঘর দখল করে নেয় বানিয়াখালী গ্রামের বাসুদব রায় (৩৫), তরুন কাÍি মন্ডল (৫৮), শনল মন্ডল (৪০) ও মিহির রায় (৩৫) সহ আরও অনেক। এসময় তারা লক্ষাধিক টাকার মাছ সহ ঘরের বাসায় ক্ষতিসাধন করে। এ ঘটনায় কয়রা থানায় অভিযোগ হলে ২০ এপ্রিল আসামীরা বানিয়াখালী বাজারের পার্শ্ব সকাল অনুঃ ৯ টার সময় চদনের পিতা তরুন প্রকাশ রায় (৫৭) কে লোহার রড দিয়ে মারপিট করে। এ ঘটনায় তরুন রায় দীর্ঘদিন হাসপাতাল চিকিৎসাধীন থাকে। এবং চদন রায় বাদী হয়ে কয়রা থানায় ৪ জনকে আসামী করে ২৬/০৪/২০২০ তারিখ একটি মামলা করেন যার নং ১৭। আসামীরা হলেন,  রতন সরদার (জয় সরকার)(৩৫), বাসুদব রায় (৫৬), তরুন কাÍি মন্ডল (৫৮) ও সুশাÍ সরদার (৫৭)। জানা গেছে, দীর্ঘ ২ মাস তদÍর পর মামলার তদÍকারী কর্মকর্তা শাহাদাত হোসেন গত ৩ জুন মামলার উল্লখিত ৪ জন আসামীকে অভিযুক্ত করে আদালত চার্জসীট দাখিল করেন। অতঃপর আসামী রতন সরদার সহ ৪ জন আসামী আদালত হাজির হল, আদালতে রতনকে জেল হাজতে পাঠায় এবং অপর ৩ জন আসামীকে জামিন মুক্তি দেয়। সূত্র জানায় আসামী রতন সরদার জেল হাজতে যাওয়ার পূর্বই পুলিশ হেফাজত থাকা অবস্থায় আসামী রতন অন্যান্য আসামীদের ডেকে বলেন, আমি বাড়ী ফিরে চদন ও তার পিতা তরুন রায় কে জীবন শেষ করে ফেলবে। এছাড়া জামিন পেয়ে অন্যান্য আসামীরা বাড়ী ফিরে বাজারঘাট মামলার বাদী চদন ও তার পিতাকে প্রকাশ্য জীবন নাশের হুমকী দেওয়ায় বাদী ও তার পিতা জীবনের নিরাপত্তারহীনতায় ভুগছে। খবর নিয়ে জানা গেছে, আসামী তরুন কাÍি মন্ডল ওরফে ডিপু তরুনর নামে কয়রা থানা ও আদালত ৮ টি মামলা রয়েছে। এবং একটি মামলায় সাজা হওয়ায় পর জামিনে আছে। এ বিষয়ে চদন রায় জানায়, জামিন পেয়ে আসামীরা এখন বপরায়া এবং আমার ও  বাবাকে হুমকী দেওয়ায় কয়রা থানায় এ বিষয় লিখিত অভিযোগ জানানো হয়েছে। এছাড়া আমাকে অস্ত্র মামলায় ফাসনোর জন্য র‌্যাবকে সংবাদ দিয়ে এবং র‌্যাব সদস্যরা এসে আমার মিলে অস্ত্র পাতার সময় তরুন মন্ডল উল্টে নিজেই গ্রেফতার হন।

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

%d bloggers like this: