নলতার ইছামতি নদীর বেড়িবাঁধের চর কেটে বালু উত্তোলন

নলতার ইছামতি নদীর বেড়িবাঁধের চর কেটে বালু উত্তোলন

মনিরুজ্জামান (মহসিন) : সাতক্ষীরা জেলার কালিগঞ্জ উপজেলার নলতার খানজিয়া সীমান্ত বিজিবি ক্যাম্প সংলগ্ন ইছামতি নদীর বেড়িবাঁধ  সংলগ্ন স্থান থেকে বালু কেটে নিয়ে যাচ্ছে একটি মহল। ফলে ওই বেড়িবাঁধ হুমকির মুখে রয়েছে। এভাবে বালু কাটতে থাকলে যে কোন মুহূর্তে বাঁধ ভেঙে বাঁধের তীরে বসবাসকারি পরিবারসহ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।  সরেজমিনে গেলে স্থানীয়রা জানান, উপজেলার ভাড়াশিমলা ইউপির সাতবসু গ্রামের মানিক, দমদম খারহাট এলাকার জয়দেব ঘোষ, নলতা ইউপির সেহারা গ্রামের মোকছেদ আলী, আ: হালিম, রাশিদুল ইসলাম, হাফিজুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত এভাবে বালু কেটে ব্যবসা করে আসছেন। এভাবে বেড়িবাঁধের গাঁ ঘেসে বালি উত্তোলন করায় বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে বিস্তীর্ণ অঞ্চল প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। এছাড়াও রৌদ্রের সময় বালু উড়ে বেড়িবাঁধের পাশে বসবাসকারীদের বাড়িতে যেয়ে পড়ছে। এতে করে দুর্বিসহ হয়ে পড়েছে তাদের জীবনযাপন। জানা গেছে, বেড়িবাঁধের পাশে বসবাসকারী মো: রফিকুল ইসলাম, শাহাজান, মো: বাবর আলী, আবু মূসা, সাবুর আলী, আনোয়ার হোসেন খায়রুল ইসলাম গত ১৪ জুলাই কালিগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন । এব্যাপারে জানতে চাইলে স্থানীয় নলতা ইউপি সদস্য মো: হাবিবুর রহমান বলেন, এভাবে  বেড়িবাঁধের চর কেটে গভীর করে বালু কাটা ঠিক হয়নি। এতে ব্যাপক ক্ষতি হতে পারে। বালু ব্যবসায়ী জয়দেব বলেন, আমি বর্তমানে ওখানে ব্যবসা করিনা। সব মোকছেদের ভাগে দেওয়া হয়েছে। মোকছেদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করতে করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।তাই বেড়িবাঁধের উপর বসবাসকারী পরিবার তথা এলাকার মানুষকে উক্ত  ঝুঁকির হাত থেকে পরিত্রাণ দিতে দ্রুত বালু উত্তোলন বন্ধ সহ দায়ীদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি  কামনা করেছেন সচেতন মহল সহ এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

%d bloggers like this: