বয়েসের প্রভাব কমায় থানকুনি পাতা

বয়েসের প্রভাব কমায় থানকুনি পাতা

থানকুনি আমাদের সবার পরিচির একটি ভেষজ উদ্ভিদ। আমাদের বসত বাড়ির আশেপাশে এই উদ্ভিদটি জন্মে থাকে। ছোট ছোট পাতা বিশিষ্ট এই উদ্ভিদটি দেখতে অনেক সাধারণ হলেও এর উপকারিতা কিন্তু অনেক। আমাদের বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় থানকুনি পাতার অবদান অপরিসীম। এ থেকে পাওয়া ভেষজ তেল অনেক চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে থাকে। থানকুনি পাতার অনেক উপকারিতার মধ্যে অন্যতম একটি হল এটি নিয়মিত খেলে এটি আমাদের শরীরে বয়সের প্রভাব পড়তে দেয় না। একই সাথে শরীর দুর্বলতা কাটাতে এর ভুমিকা অনেক। আসুন জেনে নিই কিভাবে থানকুনি উদ্ভিদ আমাদের বয়স ধরে রেখে শারীরক দুর্বলতা দূর করে।

যেভাবে কাজ করেঃ

আমাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের শরীরের অনেক রকম পরিবর্তন হতে শুরু করে। এর মধ্যে অন্যতম হলো বয়স বাড়ার সাথে সাথে আমাদের ত্বকের চামড়া ঝুলে যায় এবং আমাদের পেশীর শক্তি কমে যায়। এছাড়াও আমাদের বয়স বাড়ার সাথে সাথে মস্তিষ্কের ভিতরের স্নায়ু কোষের সংখ্যা কমতে থাকে। আর থানকুনি পাতা এসব সমস্যা নিরাময়ে দারূন কাজ করে। আসলে এর পাতায় আছে প্রচুর পরিমানে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ভিটামিন সি এবং আরও অনেক উপকারি সব উপাদান। আমাদের শরীরে যখন ফ্রি র‍্যাডিকেলসের পরিমাণ বেড়ে যায় তা প্রভাব ফেলে আমাদের ইমিউন সিস্টেমের ওপর। এর প্রভাব পড়ে আমাদের ত্বকে। ফ্রি র‍্যাডিকেলসের হাত থেকে বাঁচার প্রয়োজন অ্যান্টি অক্সিডেন্ট। যা পাওয়া যায় থানকুনি পাতায়। এছাড়াও এতে থাকা ভিটামিন সি আমাদের রোগ প্রতিরোধ করে আমাদের ত্বকের উপকার করে থাকে।

যেভাবে খাবেনঃ

শরীরে বয়সের প্রভাব কমায় থানকুনি পাতা। এজন্য প্রতিদিন সকালে দুই চামচ থানকুনি পাতার রস খেতে হবে। সবচেয়ে ভালো ফলাফল পেতে দুধের সাথে দুই চামচ থানকুনি পাতার রস মিশিয়ে প্রতিদিন রাতে ঘুমানোর আগে খেতে পারেন। তাহলে দেখবেন এই উদ্ভিদ আপনার শরীরে বয়সের কোনো প্রভাবই ফেলতে দেবে না।

হারবাল গাইড::সূত্র

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন