নিরাপদ চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যে দেশে চাষ হবে সুগার বিট

নিরাপদ চিনি উৎপাদনের লক্ষ্যে দেশে চাষ হবে সুগার বিট

স্বাস্থ্য ডেস্ক::  চিনি উৎপানের লক্ষ্যে দেশে চালু হচ্ছে সুগার বিট। আর তাই আগামী বছর থেকে বানিজ্যিক ভাবে চাষ হবে সুগার বিট। বাংলাদেশ বিট সুগার মিলস লিমিটেডের একটি জরিপে দেখা গেছে, আখ ১৪ মাসের ফসল এবং ১০০ কেজি আখ থেকে চিনি হয় মাত্র ৬ কেজি এবং আখের ছোবরাকে শুধুমাত্র রান্নাঘরে জ্বালানী হিসেবেই ব্যবহার করা হয়।  অপরদিকে, সুগারবিট মাত্র ৫ মাসের ফসল এবং ১০০ কেজি সুগারবিট থেকে চিনি হয় প্রায় ১৪ কেজি। সুগারবিট থেকে চিনি উৎপাদন করার পর, পাল্প পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার হয় এবং এর পাতা সবুজ শাক, সবুজ সার এবং পশুখাদ্য হিসেবে ব্যবহার হয়। আমাদের দেশে বছরে প্রায় ২০ লাখ টন চিনি প্রয়োজন। এর মধ্যে উৎপাদন করি মাত্র ৬০ হাজার টন। অবশিষ্ট প্রায় ১৯ লাখ ৪০ হাজার টন আমদানি করি এবং এতে হাজার হাজার কোটি টাকা বিদেশে যাচ্ছে। অপরদিকে, সুগারমিলগুলো চালাতে সরকার প্রতিবছর শত শত কোটি টাকা লোকসান দিচ্ছে। বাংলাদেশ বিট সুগার মিলস লিমিটেড ২০১৬ সাল থেকে সুগারবিট চাষ করছে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে বিদ্যমান চরাঞ্চল, লোনাঞ্চল, খারাঞ্চল, অনুর্বর, পতিত ৩ লাখ হেক্টর জমিতে সুগারবিট চাষ করে প্রায় ২৩ লাখ টন চিনি, ২৩ লাখ টন পশুখাদ্য, ২৩ লাখ টন জৈবসার এবং হাজার হাজার সিবিএম বায়োগ্যাস উৎপাদন হবে।
সুগারবিট: বাংলাদেশ বিট সুগার মিলস লিমিটেড ইতালির একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে ইতোমধ্যে পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জ উপজেলায় একটি সুগার মিল স্থাপনের কাজ শুরু করেছে, যেখানে নিম্ন পণ্যসমূহ উৎপাদন হবে –

১) প্রায় ১৩০০ টন (গুড়/চিনি)
২) প্রায় ১৩০০ টন (পশুখাদ্য)
৩) প্রায় ১৩০০ টন (মাটির প্রাণ জৈবসার )
৪) প্রায় ১০০ সিবিএম( বায়োগ্যাস)

তথ্য সংগ্রহ ও প্রদানে:: আব্দুস ছালাম (ব্যবস্থাপনা পরিচালক),বাংলাদেশ বিট সুগার মিলস লিমিটেড।

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন