মালয়েশিয়ায় ৭৫ দিনে গ্রেফতার ৩ হাজার বাংলাদেশী

মালয়েশিয়ায় ৭৫ দিনে গ্রেফতার ৩ হাজার বাংলাদেশী

সাতক্ষীরা টুডে ডেস্ক: জানুয়ারি থেকে ১৫ মার্চ ২০১৯ পর্যন্ত গ্রেপ্তার হয়েছেন বিভিন্ন দেশের ১২ হাজার ৪ শত ৯২ জন। সব থেকে বেশি গ্রেপ্তার হয়েছেন ইন্দোনেশিয়ার ৪ হাজার ৩শত ৫১জন, তারপরে রয়েছেন ৩ হাজার দুই জন বাংলাদেশী। মায়ানমারের ১হাজার ১শত ৯১, ফিলিপাইনের ১হাজার ১শত ৩৮ এবং বাকিরা অন্যান্য দেশের নাগরিক।
অভিবাসন বিভাগের প্রধান দাতুক খায়রুল দাজামি দাউদ বলেন, দুই দফায় অবৈধদের বৈধ এবং দেশত্যাগের সুযোগ দেওয়া হলেও অবৈধরা রয়ে গেছে। এছাড়াও যোগ হয়েছে বিভিন্ন দেশের নাগরিকরা ভ্রমণ ভিসায় এসে অবৈধভাবে কাজ করছে। আমরা পরিষ্কার তাদের একটি বার্তা দিতে চাই, অবৈধদের জন্য মালয়েশিয়ার মাটিকে ব্যবহার করতে দেয়া হবে না। অবৈধ শ্রমিকদের গ্রেফতারের সর্বাত্মক চেষ্টা অব্যাহত থাকবে।
আবার অনেকেই মালয়েশিয়া সরকারের বৈধ হওয়ার সুযোগ কে কাজে লাগিয়ে বৈধভাবে কাজ করছেন। আবার এজেন্টের খপ্পরে পড়ে নিঃস্ব হয়ে অবৈধ রয়ে গেছেন দীর্ঘদিন। জনপ্রতি ৬০ থেকে ৮০ হাজার টাকা নিলেও বৈধ হওয়ার সুযোগ মেলেনি অনেকের। দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর গত বছর মালয়েশিয়ার স্বাধীনতা দিবসের প্রথম প্রহর থেকেই গ্রেপ্তারে নামে অভিবাসন বিভাগ।
মালয়েশিয়ায় অবৈধ শ্রমিকদের দিন গুনছে আবারো কবে বৈধ হওয়ার সুযোগ আসবে। আবার অনেকেই মনে করছেন যদি ট্রাভেল পাস কেটে দেশে যাওয়ার সুযোগ থাকতো তাহলে চলে যেতাম। অবৈধভাবে কাজ করছেন চুয়াডাঙ্গার তাহের মিয়া এই প্রতিবেদককে বলেন, পুলিশ ও ইমিগ্রেশন এর ভয়ে ঠিকমতো কাজও করতে পারি না এখন। অপেক্ষায় আছি মালয়েশিয়া সরকার যদি আবার বৈধ হওয়ার সুযোগ দেয় অথবা দেশে যাওয়ার জন্য ব্যবস্থা হলেই চলে যাব।
আগের দিনে এমন পরিস্থিতিতে পড়িনি কখনো। মালয়েশিয়া সরকারের বৈধ হওয়া প্রকল্পে সুযোগ নিয়েও  বৈধ হতে পারিনি। দালালরা দীর্ঘদিন ঘুরিয়েও ভিসা এবং টাকাও ফেরত দেয়নি। বাধ্য হয়ে এখন চুরি করে কাজ করতে হচ্ছে। জানিনা কবে ধরা খেয়ে জেলে যেতে হবে।
এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন