কপিলমুনি কলেজের ফি পরিশোধ রশিদে গরমিল : নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ

কপিলমুনি কলেজের ফি পরিশোধ রশিদে গরমিল : নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর অভিযোগ

কপিলমুনি প্রতিনিধিঃ কপিলমুনি কলেজের বেতন বুক ও ফি পরিশোধ মূল রশিদের সাথে কার্বন রশিদের গরমিলের অভিযোগ উঠেছে। ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হারুন-অর-রশীদ কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেছেন। লিখিত অভিযোগ ও ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী মারফত জানাযায়, কপিলমুনি কলেজে ২০১৮/১৯ শিক্ষাবর্ষের দ্বাদশ শ্রেণীর বাণিজ্য বিভাগের একজন নিয়মিত ছাত্র হারুন-অর-রশীদ। ২০২০ অনুষ্টিতব্য উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় অংশ গ্রহণের জন্য কলেজের বেতনসহ সার্বিক ফি বাবদ ৫ হাজার টাকা বেতন বুকের ১৫৪৬ নং ফি পরিশোধ রশিদের মাধ্যম জমা প্রদান করেন। কিন্তু পরবর্তীতে দেখাযায়, শিক্ষার্থীর কাছে থাকা ফি রশিদের মূল কপিতে ৫ হাজার টাকা লেখা থাকলেও কলেজে রক্ষিত কার্বন কপিতে ২,২৪০ টাকা উল্লেখ করা হয়েছে। যেটির মধ্য ব্যাপক গরমিল ও ফি পরিশোধ অংকের সাথে তারতম্য ধরা পড়েছে। ঘটনায় ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী হারুন-অর-রশীদ এর প্রতিকার চেয়ে ২০ আগষ্ট কপিলমুনি কলেজ পরিচালনা পরিষদের সভাপতি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর একটি লিখিত আবেদন করেছেন। এব্যাপারে কলেজের সহকারী হিসাবরক্ষক ও ফি আদায়কারীর কাছে ঘটনার বিষয় জানতে চাইলে, তিনি বিষয়টি এড়িয়ে যান। উক্ত ঘটনার বিষয়ে কপিলমুনি কলেজ অধ্যক্ষের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে তিনি কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। তবে উক্ত ঘটনার তদন্তকারী ও পাইকগাছা উপজেলা উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ জয়নুল আবেদীন বলেন, শিক্ষার্থীর অভিযোগের আলোকে তদন্ত প্রক্রিয়া ইতোমধ্যে সম্পন্ন করা হয়েছে। দু’এক দিনের মধ্য তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

Print Friendly, PDF & Email

%d bloggers like this: