সাতক্ষীরায় করোনার উপসর্গে তিন জনের মৃত্যু: আক্রান্ত ৬

সাতক্ষীরায় করোনার উপসর্গে তিন জনের মৃত্যু: আক্রান্ত ৬

ডেস্ক রিপোর্ট: করোনার উপসর্গ নিয়ে ১১ ঘণ্টার ব্যবধানে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনজনের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোর চারটা থেকে বেলা তিনটার মধ্যে ওই তিনজন মারা যান।সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মেডিসিন বিশেষজ্ঞ মানস কুমার মন্ডল জানান, গত শনিবার জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঘোনা ইউনিয়নের এক ব্যবসায়ী (৬৮) সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। তাঁকে প্রথমে আইসোলেশনে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে রোববার তাঁকে নেওয়া হয় নিবিড় পরিচর্যা ইউনিটে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা তিনটার দিকে তাঁর মৃত্যু হয়। তিনি কিডনিসহ বিভিন্ন জটিল রোগে ভুগছিলেন। আগেই তাঁর করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা দেওয়া ছিল। খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে আসা প্রতিবেদনে সোমবার সকালে জানা যায় তিনি করোনা পজিটিভ।এদিকে করোনার উপসর্গ নিয়ে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আকতার আলী (৫০) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। সোমবার ভোর রাতে মেডিকেল কলেজ হাসাপাতালের আইসোলেশনে তিনি মারা যান। তিনি সদর উপজেলার ঘোনা গ্রামের মৃত মিয়ারাজ আলীর ছেলে।সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. রফিকুল ইসলাম জানান, জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে রোববার দুপুরে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হন ওই কৃষক। এরপর সোমবার ভোর রাতে তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।কালিগঞ্জে করোনা উপসর্গ নিয়ে রফিকুল ইসলাম (৪০) নামে এক ব্যবসায়ীর মৃত্যু হয়েছে। সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার (১৩ জুলাই) বিকেল ৪ টার দিকে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। নিহত রফিকুল ইসলাম উপজেলার কুশুলিয়া ইউনিয়নের বাজারগ্রাম রহিমপুর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, রফিকুল ইসলাম বেশ কিছুদিন যাবত করোনার উপসর্গ নিয়ে নিজ বাড়িতে স্থানীয় ভাবে চিকিৎসা নিচ্ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় সোমবার বেলা ১১টার দিকে তাকে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বেলা ৪টার দিকে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। রফিকুল ইসলাম দীর্ঘদিন যাবত কালিগঞ্জ বাস-টার্মিনাল এলাকায় ভাজাসহ বিভিন্ন ব্যবসার সাথে জড়িত ছিলেন।উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. শেখ তৈয়েবুর রহমান জানান, রফিকুল ইসলামের দেহে করোনার উপসর্গ ছিল। কিন্তু তিনি তথ্য গোপন করেছিলেন। সোমবার বিকেলে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে তার মৃত্যু হয়। প্রশাসন তার বাড়ি লকডাউন করে দিয়েছে।সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন কার্যালয়ের চিকিৎসা কর্মকর্তা জয়ন্ত কুমার সরকার বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে তাদের লাশ দাফনের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘোনা ইউনিয়নের একজনের বাড়ি লকডাউন করা হয়েছে। অন্য দু’জনের বাড়ি লকডাউন করার প্রক্রিয়া চলছে। স্বাস্থ্য বিভাগ জানায়, সাতক্ষীরায় করোনার উপসর্গ নিয়ে এ পর্যন্ত ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃত্যুর পর নমুনা পরীক্ষায় পাঁচজনের করোনা পজিটিভ সনাক্ত হয়েছে।এদিকে, গত ২৪ ঘন্টায় সাতক্ষীরায় আরও ৬জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। এদের মধ্যে রয়েছেন সাতক্ষীরার একজন সংসদ সদস্য রযেছেন। এছাড়া সদরের ঘোনা ইউনিয়নের একজন এবং তালা উপজেলার একজন নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন।করোনা আক্রান্ত হয়েছেন সাতক্ষীরার আলীপুরের একই পরিবারের তিনজন। খুলনা পিসিআর ল্যাব থেকে প্রাপ্ত রির্পোটে এ তথ্য জানা রয়েছে।এদিকে, জেলায় এ পর্যন্ত ৩৯১ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (যবিপ্রবি) জিনোম সেন্টার থেকে সোমবার দুপুরে পাওয়া নমুনা রিপোর্টে ৬ জনের করোনা পজিটিভ পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন সাতক্ষীরার স্বাস্থ্য বিভাগ।সাতক্ষীরা সিভিল সার্জন ডা. হুসাইন শাফায়াত বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, উন্নত চিকিৎসার জন্য সাতক্ষীরা সদর আসনের এমপি মীর মোস্তাক আহমেদ রবি সোমবার সকালে ঢাকায় রওনা হয়েছেন। এদিকে, স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাকী ৫জন করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির বাড়ি লক ডাউনের প্রস্তুতি নেয়া হচ্ছে বলে এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জানান।

এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন

%d bloggers like this: