অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে সম্পত্তি উদ্ধার ও জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে সম্পত্তি উদ্ধার ও জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে সংবাদ সম্মেলন

সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ সাতক্ষীরায় আদালতে মামলা চলমান অবস্থায় ভাড়াটিয়া বাহিনীর সহযোগিতায় আলীপুর এলাকায় সড়ক পরিবহন শ্রমিকলীগ নেতার পৈত্রিক সম্পত্তি অবৈভাবে দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার দুপুরে সাতক্ষীরা প্রেসক্লাবের আব্দুল মোতালেব মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনে সদর উপজেলার আলীপুর মাঝেরপাড়া গ্রামের মৃত গোলাম রব্বানী মন্ডলের ছেলে নুরুল আলম এই অভিযোগ করেন।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার দাদা নাতেক মন্ডলের ওয়ারেশ হিসাবে আলীপুর মৌজায় ৫ একর ৫০ শতক জমি পৈত্রিক সূত্রে মালিক আমার পিতা গোলাম রব্বানী মন্ডল। পিতা জীবিত থাকা অবস্থায় ৩১১ খতিয়ানের ৩৯৬২, ৩৯৬৩, ৩৯৬৪ ও ৩৯৬৫ দাগের ৬০ শতক জমি ক্রয় করেন। উক্ত সম্পত্তি দীর্ঘদিন ধরে আমারা শান্তিপূর্নভাবে ভোগদখল করে আসছি। ২০১৪ সালে পিতার মৃত্যুর পর আমার আরেক
দাদা মৃত সুলতান মন্ডলের ওয়ারেশ রহমত, রহিল উদ্দিন, মৃত শওকত আলীর ছেলে হাফিজুর রহমান, সিদ্দিক, সাঈদ, আজিজ, ময়না, রহমতের ছেলে আমিনুর, ওলি, রহিলের ছেলে অবু হাসান ও হুসাইন, এলবাহারের জামাতা আনসার, আনসারের কবির, বিল্লাল, ইকবাল ও সবুজ এবং ভাড়াটিয়া লাঠিয়াল বাহিনী আলম ও অফসার গংরা আমার দাদা নাতেক মন্ডলের ওয়ারেশদের সম্পত্তি অবৈধভাবে দখলের ষড়যন্ত্র শুরু করে। তারা সাবেক ৯০৫ দাগের ৮ বিঘার মধ্যে আমার নিজের ৫ বিঘা জমির মৎস্য ঘের দখল, লুটপাট, বসতবাড়ি ভাংচুরসহ নানা চক্রান্ত চালিয়ে যাচ্ছে।
উল্লেখিতরা ভাড়াটিয়া সন্ত্রাসীদের দিয়ে আমাকে হত্যার পরিকল্পনাও করে। এখন তারা আমাকে প্রকাশ্যে হত্যার হুমকিও দিচ্ছে। এঘটনায় আমি গত ২৪ জুলাই ও ৬
আগষ্ট সদর থানায় পৃথক সাধারণ ডায়েরী করি। নুরুল আলম অভিযোগ করে বলেন, আমার পিতার ক্রয় ও পৈত্রিক সূত্রে প্রাপ্ত প্রায় ২০ বিঘা সম্পত্তি হলেও উল্লেখিতরার কতিপয় দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাকে ম্যানেজ করে অবৈধভাবে ভোগদখল করে যাচ্ছে। জমি ফেরত চাইলে তারা আমাকে খুন জখমের হুমকি দেয়। এই সম্পত্তি নিয়ে আদালতে দেং-০৪/১৯ নং মামলা রয়েছে। তারপরও তারা জোরপূর্বক আমার সম্পত্তি দখল করে যাচ্ছে। এঘটনা এমপি রবি’র
নির্দেশনায় গত ৯ আগষ্ট পৌর কাউন্সিলর কাজী ফিরোজ হাসানের অফিসে বসাবসি হলে তারা কোন কাগজ দেখাতে না পারায় ফের ২০ আগষ্ট দিন নির্ধারণ করা হয়।
কিন্তু তারা এমপি’র নির্দেশনা উপেক্ষা করে ১২ অগষ্ট উক্ত তপশীল জমিতে জোরপূর্বক ধান চাষের চেষ্টা করে।
তিনি আরো বলেন, উল্লেখিত ব্যক্তিরা একটি সংঘবদ্ধ জালিয়াতি চক্রের সদস্য। তারা জাল দলিল সৃষ্টি করে অন্যের জমি দখলের পায়তারা করছে। কিন্তু অজ্ঞাত
কারেন তাদের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় না। ১৯৪৪ খতিয়ানে আমার দাদা নাতেক মন্ডলের ১ একর ৩৮ শতক জমি  রহমত, শওকত ও রহিল উদ্দিন জাল দলিল
সৃষ্টি করে ২০০৯ সালে আব্দুস সবুরের কাছে বিক্রি করে। তারা আমার পিতার নামে রেকড  করা প্রায় ৫বিঘা জমি জবর দখল করে খাচ্ছে। তারা আমার বাকি সম্পত্তিও দখলের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে। ফলে তাদের কারনে আমি বর্তমানে চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। তিনি ওই অবৈধ দখলদারদের কবল থেকে নিজের সম্পত্তি উদ্ধার ও জীবনের নিরাপত্তার দাবিতে সাতক্ষীরা পুলিশ সুপারসহ
সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের জরুরী হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

Print Friendly, PDF & Email

%d bloggers like this: