শনিবার, ২৪ জুলাই ২০২১, ০৫:০৩ পূর্বাহ্ন

সামেক হাসপাতালে পেশাগত দায়িত্ব পালনে সাংবাদিক লাঞ্ছিত কেন!

রিপোটারের নাম / ১২
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১

করোনাকালীন সংবাদ সংগ্রহের সময় সাংবাদিকদের প্রতি অসদাচরণ বেড়েই চলেছে। সারাদেশে নানাভাবে নানা সময়ে লাঞ্ছনা-বঞ্চনা ও নিগ্রহের শিকার হচ্ছেন সাংবাদিকরা।
যারা দেশ ও মানুষের কথা বলেন তাদের বিশেষ সম্মানের চোখে দেখাই ছিল বাঞ্ছনীয়। কিন্তু দেশে বর্তমান চিত্র সম্পূর্ণ ভিন্ন। সঠিক তথ্য, বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করতে গিয়ে মামলা হামলার শিকার হচ্ছেন রাজধানীসহ মফস্বল সাংবাদিকরা। পরবর্তীতে বিভিন্ন কারণ দেখিয়ে গ্রেপ্তার করা হচ্ছে তাদের। এর ফলে একদিকে যেমন বস্তুনিষ্ঠ তথ্য ও সংবাদ আড়ালে পড়ে যাচ্ছে অপরদিকে এসব অন্যায় অপকর্ম বেড়েই চলেছে। ফলশ্রুতিতে গুটিকয়েক অসৎ মানুষের এহেন কর্মকান্ডে সমাজ তথা রাষ্ট্রে অনিয়ম-দুর্নীতির ষোলকলা পূর্ণ হতে চলেছে।
শুক্রবার পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় আর টিভির সাতক্ষীরা প্রতিনিধি সিনিয়র সাংবাদিক রামকৃষ্ণ চক্রবর্তীর সাথে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত কয়েকজন চিকিৎসক চরম দুর্ব্যবহার করেছেন। অনলাইন নিউজ পোর্টাল‘র লাইভ চলাকালীন দেখা যায়, মেডিকেল কলেজের আসিফ নাম করে একজন ডা. তার উপর ক্ষেপে ওঠে। সেখানে তিনি বিভিন্নভাবে সাংবাদিক রামকৃষ্ণ চক্রবর্তীকে অপমান অপদস্ত করতে দেখা যায়। সাথে থাকা আরও দু’জন চিকিৎসক একইভাবে তার সাথে অসদাচরণ করেছেন। এক পর্যায় দেখা যায়, তারা কয়েকজন মিলে রামকৃষ্ণ চক্রবর্তীকে তার পরিচয় দিতে বলেন। রামকৃষ্ণ তাদের উদেশ্যে নিজেকে আর টিভির সাংবাদিক বলে পরিচয় দিলে তারা তার কার্ড দেখতে চান। একপর্যায়ে কার্ড দেখালেও তারা আইনের ভয় দেখিয়ে নিজেদের ঘর গড়া আইন সাংবাদিক রামকৃষ্ণকে শিখাতে থাকেন। এমনভাবে বেশ কিছু সময় তারা কয়েকজন মিলে রামকৃষ্ণ এবং তার ক্যামেরা পার্সনের সাথে অশোভন আচরণ চালিয়ে যান।
এমন চিত্র শুধু যে সাতক্ষীরাতে ঘটছে তা কিন্তু নয়, সারাদেশে সাংবাদিকদের সাথে এমন আচরণ করা হচ্ছে। ন্যায় ও সত্যের কথা বলতে গেলে বিভিন্ন কৌশলে এ সমস্ত সরকারি কর্মকর্তারা বাঁধা হয়ে দাঁড়াচ্ছেন। এদিকে দু’দিন আগে সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে অক্সিজেনের অভাবে ৭জন মারা যাওয়ার অভিযোগ উঠে। মৃত্যের স্বজনরা এ অভিযোগ তোলেন। পরে সেটা দেশের টিভি, পত্রপত্রিকায় রির্পোট হয়ে ছাপা হয়। তাহলে বলতে বাধ্য হচ্ছি এসব কারণেই কি কর্তৃপক্ষ তারা সাংবাদিকদের সাথে এমন আচারণ করছেন? চলে আসবে নানা উত্তর। সেদিকে আর না যায়। মূলকথা সাংবাদিকদের ঐক্য হতে হবে। তা না হলে এমন পরিস্থিতির পরিবর্তন হবে না। তাদের মধ্যে একতা না থাকায় নির্যাতনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ নেই। সাংবাদিক ইউনিয়নগুলোও দুর্বল। সবাই ব্যক্তি স্বার্থ, রাজনৈতিক স্বার্থ নিয়ে চিন্তা করে। ইউনিয়নের বিভক্তি দূরে ঐক্য প্রয়োজন। তাহলে যদি কিছুটা মুক্ত হয় সাংবাদিকতা। সবশেষ সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত এসব চিকিৎসকের এহেন আচারণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

লেখক: রিয়াদ হোসেন, কলাম লেখক, খুলনা


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ