HEADLINE
ঝাউডাঙ্গা ভূমি অফিসের তহসিলদারের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ দাঁতভাঙা বিলে মৎস্য ঘের থেকে অজ্ঞাত নারীর লা’শ উদ্ধার মুখে মাস্ক পরে দেবহাটায় একরাতে ৪টি দোকানে চুরি ভাগ্য খুলতে পারে খুলনা জেলা ছাত্রলীগের! স্কুল ম্যানেজিং কমিটি গঠনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ সাতক্ষীরায় বেসরকারি ক্লিনিকে অভিযানে ভুয়া চিকিৎসকসহ দু’জনের কারাদণ্ড সাতক্ষীরা হার্ট ফাউন্ডেশনে সেবিকার কর্তব্য অবহেলায় বৃদ্ধার মৃ’ত্যুর অভিযোগ ডুমুরিয়ায় দুই শিশু সন্তানকে বালিশ চা’পা দিয়ে হ’ত্যার পর মায়ের আত্মহ’ত্যা ভোমরা প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন : সভাপতি জাহাঙ্গীর, জিয়া সাধারণ সম্পাদক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে হবে
শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১০:০৪ পূর্বাহ্ন

সাতক্ষীরা ১ আসনে নৌকার সম্ভাব্য প্রার্থী সরদার মুজিবের প্রচারণায় মুখরিত

খলিলুর রহমান, সাতক্ষীরা / ৩৭২
প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ১১ জুলাই, ২০২৩

সাতক্ষীরা-১ (তালা-কলারোয়া) বাংলাদেশের জাতীয় সংসদের ৩০০টি নির্বাচনী এলাকা। এটি সাতক্ষীরা জেলায় অবস্থিত বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের ১০৫ নং আসন।।আসনটি জেলার কলারোয়া উপজেলা আর তালা উপজেলা নিয়ে গঠিত

এ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা ইতোমধ্যে আটঘাট বেঁধেই মাঠে নেমেছেন। দলের সবুজ সঙ্কেত পেতে অব্যাহত চেষ্টা চলছে তাদের। সঙ্গত কারণে একদিকে তারা যেমন কেন্দ্রের নেতাদের সাথে যোগাযোগ অব্যাহত রাখছেন, ঠিক তেমনি করেই তৃণমূল নেতাকর্মী থেকে শুরু করে সর্বস্তরের জনতার সাথে মতবিনিময় করছেন। এমন কি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের পাশাপাশি ব্যক্তিগত রাজনৈতিক প্রচারণা চালাচ্ছেন তারা। আর মনোনয়ন ঝুঁকিতে যেসব সংসদ সদস্য প্রচন্ড প্রতাপে এলাকায় রাজনীতি করেছেন, তারা এখন জনমুখী হওয়ার চেষ্টা করছেন। ‘এলাকায় ভোট নেই তাদেরকে মনোনয়ন দেয়া হবে না’ কেন্দ্রের এমন ঘোষণায় তটস্থ এসব জনপ্রতিনিধি। 

সূত্রমতে, সাতক্ষীরা-১ আসনে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশীরা হলেন- সৈনিকলীগের কেন্দ্রীয় নেতা সরদার মুজিব, সাবেক এমপি ইঞ্জি: মুজিবুর রহমান,জেলা আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি এ্যাডঃ মোহাম্মদ হোসেন, তালা উপজেলা আ.লীগের সভাপতি শেখ নূরুল ইসলাম, সাবেক এমপি বি এম নজরুল ইসলাম, তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার, কলারোয়া উপজেলা চেয়ারম্যান ফিরোজ আহমেদ স্বপন,কেন্দ্রীয় নেতা রফিকুল ইসলাম,ফিরোজ কামাল শুভ্র। এদিকে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের মধ্যে প্রচার প্রচারণায় এগিয়ে রয়েছেন বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি ও সাতক্ষীরা জেলা আ.লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক সরদার মুজিব। সাতক্ষীরার তালা ও কলারোয়ার উপজেলায় বর্তমানে প্রতিদিনই কোথা না কোথাও অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানে তাকে দেখা যাচ্ছে।  ওয়াজ মাহফিলে প্রত্যেক বছরের ন্যায় এবারও অধিকাংশ স্থানে আ.লীগ নেতা সরদার মুজিবকে প্রধান অতিথি করার বিষয়টি লক্ষ্যণীয়। কারণ ইসলাম ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান উন্নয়নে বরাবরই তার দানের হাত লম্বা বলে এসময় চাহিদা বাড়ার পাশাপাশি সংশ্লিষ্ঠদের কাছে ইতোমধেই তিনি দানবীর হিসেবে খ্যাতি অর্জন করতে চলেছেন।সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমেও চলেছে তার প্রচার সগৌরবে। একই সাথে ধর্মভীরু মানুষটি সমাজসেবায় বিশেষ অবদান রাখায় সম্প্রতি মহাতœা গান্ধী সম্মাননা পুরস্কার ২০১৭ লাভ করেছেন। রয়েছেন সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন সামাজিক প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপূর্ণ পদেও। 

পারিবারিক পরিচয় ::

পিতা:- মহান মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক প্রয়াত চেয়ারম্যান চাঁদ আলী সরদার

মুক্তিযুদ্ধের প্রথম প্রহরেই যিনি পাকিস্থানী হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেফতার 

হয়ে চরম ভাবে শারীরিক নির্যাতনের স্বীকার হয়ে কারাভোগ করেন। 

দেশ স্বাধীনের পর জীবিত ছিলেন।

* মহান মুক্তিযুদ্ধের রনাঙ্গনে দুই মামা শহীদ হয়েছেন।

* ছোটভাই :-প্রভাষক সরদার মশিউর বঙ্গবন্ধু মহিলা কলেজ, কলারোয়া,সাতক্ষীরা

  সাধারন সম্পাদক কেরালকাতা ইউনিয়ন আওয়ালীগ, কলারোয়া সাতক্ষীরা।

* ছোটভাই :- ভিপি মোরশেদ ৩ বারের নির্বাচিত ইউনিয়ন চেয়ারম্যান ও 

  সহ সভাপতি কলারোয়া উপজেলা আওয়ামীলীগ,

  সাতক্ষীরা।

* ছোটভা :-“সরদার খলিল”পুলিশ অফিসার, বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনী ।

* ভাতিজা :- আরাফাত হোসেন স্বপন, স্বপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ী বাসিন্দা হিসেবে বসবাস রত।

* ভাতিজী :- ক্যাপ্টেন সাদিয়া এবং তার স্বামী- বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ক্যাপ্টেন।

* ভাতিজী :- জেরিন ঐশীর স্বামী- ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট – বাংলাদেশ বিমান বাহিনী ।

* ভাগিনা :- রেনু’র স্বামী বিসিএস এ্যাডুকেশন প্রফেসর ড. মাহমুদ হাসান, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়

* ছোট বোন:- ও তার স্বামী উভয় এ্যাডভোকেট।

রাজনৈতিক জীবন::

নাম: সরদার মুজিব

জন্ম তারিখ: ০৩ ডিসেম্বর ১৯৬৪ইং, বয়সঃ ৬০

পিতা: মৃত চাঁদ আলী সরদার (ইউনিয়ন চেয়ারম্যান, মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সংগঠক)

মাতা: মৃত জুলেখা খাতুন

স্ত্রী:   মৃত নাসরিন জাহান (সরকারী কর্মকর্তা)

শিক্ষাগত যোগ্যতা: এইচ এস সি (বিজ্ঞান), কারিগরী শিক্ষায় গ্রেড-১

দুই পুত্র সন্তান: এস,এম মেহদী মুজিব, সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার যুক্তরাজ্যে বসবাসরত ও

এস,এম সিনহা মুজিব, এলএলবি শেষ বর্ষ (ব্রিটিশ’ল’)

বর্তমান ঠিকানা: : বাড়ী নং-৬/৬, ব্লক-এ, রোড নং- ৬, লালমাটিয়া, মোহাম্মদপুর, ঢাকা-১২০৭

স্থায়ী ঠিকানা: গ্রাম: নাকিলা, ডাকঘর: কেরালকাতা, উপজেলা: কলারোয়া, জেলা: সাতক্ষীরা

মোবাইল: +৮৮০১৭১১১০৪৬৬৬, +৮৮০১৯২২৪০৬৬৬৬

রাজনৈতিক জীবনে পদায়ন ::

→ সাবেক প্রচার সম্পাদক বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কলারোয়া কলেজ ছাত্র সংসদ।

→ সাবেক কৃষি বিষয়ক সম্পাদক জেলা আওয়ামীলীগ, সাতক্ষীরা।

→ শ্রম ও জনশক্তি বিষয়ক সম্পাদক জেলা আওয়ামীলীগ, সাতক্ষীরা।

→ সাংগঠনিক সম্পাদক বঙ্গবন্ধু সেনা পরিষদ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটি (প্রস্তাবিত বঙ্গবন্ধু স্মৃতি কল্যান ট্রাস্ট)।

২০০১-২০২৩ একটানা ২২ বৎসর যাবৎ বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগ কেন্দ্রীয় কমিটি গুরুত্বপূর্ণ পদ সমূহে থেকে গোটা বাংলাদেশে

সকল জেলা ও বিভাগীয় শহরে দক্ষতার সাথে কাজ করে চলেছেন। সংগঠনের সাধারন সম্পাদকের দ্বায়িত্ব পাওয়ার পরই সততা নিষ্ঠা ও দক্ষতার সাথে দায়িত্ব পালনের শেষে দলীয় সভানেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট থেকে নির্দেশ ক্রমে সফলতার সাথে

কেন্দ্রীয় কাউন্সিল করতে সক্ষম হয় বর্তমানে নতুন নেতৃত্বের প্রস্তাবিত কেন্দ্রীয় কমিটিতে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসাবে

দায়িত্বে নিয়োজিত আছেন।

সময়ের সাহসী নেতা সরদার মুজিবের সাথে “জাকীয় দৈনিক আলোচিত কন্ঠ” এর সাতক্ষীরা প্রতিনিধির একান্ত সাক্ষ্যাতকারে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, শতকরা ৯০ জন মুসলমানের এ দেশে জন্মে নিজেকে ধন্য মনে করি ঠিকই, তবে অন্যান্য সকল ধর্ম এবং মানুষের প্রতি আমার যথাসাধ্য সহযোগিতা ও শ্রদ্ধা-ভালোবাসার এতটুকু কমতি নেই।গত সংসদ নির্বাচনে আমি অংশগ্রহণ করি। নির্বাচনে জয়ী হতে পারিনি। তবুও জনগনের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়নি। সবসময় জনগনের বিপদে/আপদে পাশে দাঁড়িয়েছি এবং বিভিন্ন রকমের উন্নয়নমূলক কাজ করে যাচ্ছি। আরো বলেন, আমি মৌসুমি নেতা না, যে শুধু নির্বাচনের সময় জনগনের পাশে যাবো,খোজ- খবর নিবো। আমি সবসময়ের জন্য, মৃত্যুর আগ পর্যন্ত জনগনের জন্য নিবেদিতপ্রাণ।  

এক প্রশ্নের জবাবে সরদার মুজিব বলেন,শত বিপদেও আমি রাজনীতি থেকে পিছপা হইনি। আমার বিশ্বাস প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়তে যে ডিজিটাল স্মার্ট বাংলাদেশ গড়ার পদক্ষেপ নিয়েছেন তাতে স্মার্ট মেধাবী দক্ষ নেতৃত্বই নিয়ে আসবে বলে আমি মনে করি। এই জন্য আমি শতভাগ বিশ্বাসী আমাকে দলীয় মনোনয়ন দিবে।

আমি শাসক না, সেবক হতে চাই। বড় দল হওয়ায় এই আসনে আরও দু-পাঁচজন মনোনয়ন চাইতে পারেন। কিন্তু সর্বস্তরের নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষের চাওয়া এই এলাকার গ্রামকে শহরে রুপান্তরিত করার জন্য আমাকে মনোনয়ন দিয়ে নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে এমপি নির্বাচিত করা হোক। আমি তৃণমূলের নেতা-কর্মী ও সাধারণ জনগণের সঙ্গে ব্যক্তিগত সম্পর্ক গড়ে তুলেছি। নির্বাচনী এলাকার অসহায় ও দুস্থদের পাশে থেকেছি সবসময়। আমার বিশ্বাস, আগামী নির্বাচনে জনসমর্থন এবং দলীয় সিদ্ধান্ত আমার পক্ষেই থাকবে।আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী সরদার মুজিবসহ একাধিক নেতা কর্মীরা বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়নে আওয়ামী লীগ সরকার রোল মডেল। তাই সম্রার্ট বাংলাদেশ গড়তে আওয়ামী লীগ সরকারের বিকল্প নেই। তবে নির্বাচনী এলাকার নেতা কর্মীর মধ্যে পছন্দের প্রার্থী নিয়ে মতভেদ থাকলেও নৌকা প্রতিক নিয়ে কারো কোন বিরোধ নেই। তাই দলের হাইকমান্ড যোগ্য মনে করে আসন্ন সংসদ নির্বাচনে এ আসনে যাকে দলীয় মনোনয়ন দিবেন সর্বস্তরের নেতা কর্মীরা তার পক্ষেই কাজ করবেন। জেএমবি’র অপতৎপরতা দমনের পাশাপাশি ব্যাপক উন্নয়নের দাবি করে আগামী নির্বাচনেও জয়ের ব্যাপারে আশাবাদী আওয়ামী লীগ।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ