সরিষা কাটার কাজ করে মানুষের সেবা করছে খাসখামার মানবিক সংগঠন

সরিষা কাটার কাজ করে মানুষের সেবা করছে খাসখামার মানবিক সংগঠন

শাহিনুর ইসলাম:: মানুষ মানুষের জন্য। একজন বিপদে পড়লে তার সাহায্যে এগিয়ে আসা অন্য মানুষের ধর্ম। এটাই মানুষের স্বাভাবিক প্রবৃত্তি। গ্রামের অসহায় হয়ে পড়া অগণিত খেটে খাওয়া অসহায় মানুষদের পাশে দাড়িয়েছেন দেবহাটা উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের খাসখামার স্বেচ্ছাসেবী মানবিক নামে একটি সংগঠন। কখনো তারা রাতের আধারে মানুষের বাড়িতে খাবার নিয়ে হাজির আবার কখনো গরীব মানুষের জন্য নতুন পোষাক, ঔষধ ও নগদ টাকা নিয়ে হাজির।
গ্রামের অসহায় মানুষদের কথা চিন্তা করে এই উদ্যমী তরুণরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা এলাকার মানুষের জন্য কিছু করবে। এসব করতে করতে গেলে প্রয়োজন অর্থের। কিন্তু তারা অনেকেই বেকার। তাই তারা সিদ্ধান্ত নিলো মাঠে ঘাটে কাজ করে হলেও অর্থ উপাজন করে এলাকার মানুষের পাশে দাড়াবে। সংগঠনের তরুন যুবকরা সবাই সাড়া দিয়ে নেমে গেল মাঠে। গ্রামে এখন সরিষা কাটার মৌসুম এজন্য প্রথমে শুরু করলো মাঠে সরিষা কাটার কাজ। প্রতিদিন ১৪/১৫জন যুবক দুই থেকে তিন বিঘা সরিষা কেটে কৃষকের বাড়িতে তুলে দিচ্ছেন। তার বিনিময়ে তারা পাচ্ছে কিছু অর্থ সেই অর্থ খরচ করবে এলাকার মানুষের জন্য। আমাদের প্রতিনিধি শাহিনুর ইসলাম সরজমিনে গিয়ে তাদের এই মহৎ কাজ অবাক দৃষ্টিতে দেখতে লাগলো এবং তাদের এই মহৎ উদ্যোগকে ধন্যবাদ জানান।

সংগঠনের সহ-সভাপতি রুবেল বলেন, “এলাকার অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে পেরে আমি গর্বিত”। এ কাজ সফলভাবে করতে পেরে আনন্দিত। ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই গোটা দলকে যারা আমাদের ডাকে সাড়া দিয়ে এগিয়ে এসেছেন। আমরা গ্রামের মানুষের জন্য কিছু করার প্রেরণা পাচ্ছি এবং উদ্বুদ্ধ হয়েছি।”
যাদের নিজেদের না আছে সহায়-সম্বল, না পারছে কাজ করতে, না পাচ্ছে কোনো সহযোগিতা তাদের পাশে সবসময় আমাদের এই খাসখামার স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠন থাকবে। তিনি আরো জানান, আমাদের যতই কষ্ট হোক আমরা গ্রামের মানুষের পাশে থাকবো। এখন তো সরিষা কাটছি প্রয়োজনে ধান কাটবো, ফসল চাষ করবো, মাছ চাষ করবো তবুও আমরা পিছু হাঁটবো না।

এই উদ্যমী তরুণ দলের বাকি সদস্যরা হচ্ছেন- রুবেল, মুজাহিদুল ইসলাম, মোকলেছুর রহমান, ইকবাল, আলআমিন, সাদ্দাম, আল মামুন ও সবুজ, আমান, শামীম ও আশিক প্রমূখ।

সংগঠনের সভাপতি প্রবাসী ইয়াছিন আলী জানান, আমাদের সংগঠন নি:স্বার্থ মূলক সংগঠন। আমরা সব সময় এলাকার মানুষের কল্যানে কাজ করছি। আমি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মানুষের কাছে আহŸান জানায়, আমাদের মত সমাজের বিত্তবান বা হৃদয়বান মানুষেরা এভাবে যেন মানুষদের পাশে দাঁড়ায়। আমাদের এই প্রচরাণার মাধ্যমেই দেশ-বিদেশের মানুষ যেন তাদের এলাকায় মানুষের জন্য সহযোগিতা নিয়ে এগিয়ে আসে এবং পাশে থাকতে পারে।

এদিকে এই খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে, প্রশংসা সবার মুখে মুখে। দরিদ্র অসহায় মানুষের পাশে যুবকদের এভাবে এগিয়ে আসাটা সত্যিই প্রশংসা করার মতো কাজ। মুখে খুশির হাসি, চোখে আনন্দের অশ্রæ নিয়ে দুহাত তুলে সৃষ্টিকর্তার নিকট তাদের মঙ্গলের জন্য প্রার্থনা করলেন এলাকাবাসী। অন্যদিকে কুলিয়া ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আসাদুল ইসলাম খাসখামার স্বেচ্ছাসেবী মানবিক সংগঠনের এই কার্যক্রম দেখে বাহবা জানান এবং তিনি কমিটির পাশে থেকে সার্বিক সহযোগিতা করবেন বলে জানান।

Print Friendly, PDF & Email
এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন