বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৩:৫১ পূর্বাহ্ন

শ্যামনগর ধুমঘাটে জোর পূর্বক ভূমিদস্যু কর্তৃক জমি দখলের অভিযোগ

শ্যামনগর প্রতিনিধি / ৩২১
প্রকাশের সময় : সোমবার, ৫ জুলাই, ২০২১


শ্যামনগর উপজেলার ধুমঘাট গ্রামে ভূমিদস্যু কর্তৃক প্রতিবেশীর বসত ভিটার জমি দখলের অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী পরিবারে মাধ্যমে জানা যায় , ধুমঘাট মৌজার এস,এ ১৩২ নং খতিয়ানের ৬১২ দাগে হরেন্দ্র নাথ মন্ডল ১৯৮৩ সালে পৈত্রিক ভিটা ৬১৩ দাগ সংলগ্ন ৫০ শতক জমি ক্রয় করে ভোগ দখলে আছেন। বর্তমানে হরেন্দ্র মন্ডলের পুত্র ডাঃ মধুসূধন মন্ডল ঢাকা সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে মহামারী করোনায় ভয়কে উপেক্ষা করে মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছে । আর এক পুত্র শিশির মন্ডল প্রবাসী কল্যান কর্মসংস্থান মন্ত্রনালয়ে ও মাধব মন্ডল খুলনায় কলেজের শিক্ষক হিসাবে চাকুরী করছেন। এই সুযোগে বিগত এপ্রিল মাসে একই গ্রামের মৃত বিকাশ সরদারের পুত্র উৎপল কুমার সরদার (লিটন ) , উজ্বল কুমার সরদার (স্বরুপ) ও মৃত্যুঞ্জয় সরদার উক্ত ভিটা -জমির একটি অংশ দখলের উদ্দ্যোশে পুকুর খননের চেষ্টা করলে বিষয়টি ডাঃ মধুসূধন মন্ডল জানতে পেরে ৯৯৯ ফোন দিয়ে শ্যামনগর পুলিশের সহায়তায় পুকুর খনন কাজ বন্দ করেন। এ সময় পুলিশ উভয় পক্ষের কাগজ পত্র দেখে মিমাংসার কথা বলেন। পরবর্তীতে লগডাউনের কারনে সেটা সম্ভব হয়নি। এর মধ্যে ভূমিদস্যুরা রাতারাতি নেট জালের ঘেরা-বেড়া দিয়ে ভিটা দখলের চেষ্টা করে। পুনরায় বিষয়টি জানতে পেরে ৩০ শে জুন মাধব খুলনা থেকে বাড়ী এসে উক্ত অবৈধ্য ঘেড়াবেড়া উচ্ছেদ করতে গেলে উৎপল কুমার সরদার (লিটন ) , উজ্বল কুমার সরদার (স্বরুপ ) ও মৃত্যুঞ্জয় সরদারসহ একই এলাকার মৃত সুরেন্দ্র নাথ মন্ডলের পুত্র নিমাই চন্দ্র মন্ডল , পরিতোষ মন্ডল , নিমাই চন্দ্র মন্ডলের পুত্র তাপস মন্ডলসহ তাদের লাঠিয়াল বাহিনী নিয়ে এগিয়ে আসলে মাধব ভয়ে ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। এসময় দস্যুরা সেখানে বিভিন্ন প্রজাতির গাছ গাছালি কেটে নষ্ট করে। এ ব্যাপারে মাধব শ্যামনগর থানাকে অবগত করে। ০২ রা জুলাই পুনরায় ভূমি দস্যুরা উক্ত সম্পত্তি মজবুত ভাবে ঘেড়াবেড়া প্রদান করে। এ বিষয়ে মাধব কৃষ্ণ মন্ডল বলেন , আমাদের জন্মের পর থেকে দেখে আসছি আমার পিতা উক্ত সম্পত্তির ভোগ দখলে আছে। এখন আমরা বাড়ীতে না থাকার সুযোগে ভূমিদস্যুরা আমাদের জমি দখল করে নিচ্ছে। তিনি আরও বলেন , আমাদের জমি কবলা করা ৫০ শতক ১৯৮৩ সালে যা মাঠ জরিপের সময় দখল অনুযায়ী আমাদেরকে রেকর্ড দিয়েছে। আর তাদের জমি কবলা ১৯৮৬ সালে। তারা সম্পূর্ন্ন গায়ের জোরে আমাদের জমি দখল করে নিচ্ছে।  এ ব্যাপারে শ্যামনগর থানায় ডেকে কাগজপত্র অনুযায়ী মিমাংসার কথা বলা আছে। কিন্তু পুলিশের সেসব কথা অমান্য করে ভূমিদস্যুরা আমাদের জায়গা দখল করে নিচ্ছে। আমরা এর প্রতিকার চাই। এ ব্যাপরে হরেন্দ্র নাথ মন্ডলের ভাই মৃত অবিনাষ মন্ডলের পুত্র রবীন্দ্র নাথ মন্ডল বলেন , আমার পিতারা তিন ভাই। বড় জ্যাঠার কোন পুত্র না থাকায় তার জামাই মেয়ে ও সন্তানেরা এখানে বসবাস করেন। ৬১২ দাগে আমাদের ১৬.৫ শতক জমি আছে যা কবলা করি ১৯৮৬ সালে এবং জ্যাঠার দলিল আমাদের পরের দলিল। যে জায়গাটি নিয়ে বিরোধ হচ্ছে সেটি ৩০/৩৫ বছর ধরে আমার ছোট কাকা ও তার সন্তানেরা ভোগ দখল করে আসছে। এ বিষয়ে উজ্বল কুমার সরদার (স্বরুপ ) বলেন , বিরোধীয় সম্পত্তি আমাদের। এ জন্য ঘেড়াবেড়া দিয়েছি। এ বিষয়ে শ্যামনগর থানার অফিসার ইনচার্জ আলহাজ্ব নাজমুল হুদা বলেন , জমি নিয়ে উভয় পক্ষ অভিযোগ দায়ের করেছেন। বিষয়টি নিষ্পত্তির জন্য এস,আই হাবিবকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। এস,আই হাবিব বলেন , অভিযোগকারীরা মামা-ভাগ্নে। তদন্ত পূর্বক জমি-জায়গা সংক্রান্ত বিরোধ নিষ্পত্তি করা হবে।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ