HEADLINE
পরিবারের সবাইকে অজ্ঞান করে ১০ লক্ষ টাকার মালামাল লুট! বাংলাদেশের মেয়েরা এখন আর পিছিয়ে নেই এমপি রুহুল হক ভোমরায় পাসপোর্ট যাত্রীদের তল্লাশির নামে বিজিবির হয়রানি সাতক্ষীরা পৌরমেয়র চিশতিসহ পৌর বিএনপির ১০ নেতা আটক শাশুড়ির কামড়ে জামাইয়ের কান ও জামাইয়ের কামড়ে শাশুড়ির হাতের শিরা বিছিন্ন কালিঞ্চী এ. গফ্ফার মাধ্যঃ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বন্দে আদালতে মামলা বৈকারীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ চোরাকারবারি গ্রেপ্তার রাত পোঁহালেই দেবহাটা প্রেসক্লাবের নির্বাচন সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগ নেতাকে অস্ত্রকান্ডে ফাঁসিয়ে ভারতে পালালেন মূলহোতা নির্বাচন নিয়ে ভাবার কিছু নেই, আমরা গণতান্ত্রিক দল : সাতক্ষীরায় আ.ক.ম মোজাম্মেল হক
শুক্রবার, ০৭ অক্টোবর ২০২২, ০২:২৩ পূর্বাহ্ন

শ্যামনগরে বন্ধ হচ্ছে না অবৈধ বালু উত্তোলন

আব্দুল কাদের, শ্যামনগর / ১৪৮
প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১২ মে, ২০২২

 
 শ্যামনগর উপজোর বিভিন্ন এলাকায় অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন বন্ধ হচ্ছে না। যেন প্রতিটা ইউনিয়নে বালু উত্তোলনের মৌসুম চলছে। ভাঙ্গন কবলিত এলাকা সহ বিভিন্ন স্থান থেকে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে। অবৈধভাবে  ঘনবসতি এলাকা থেকে থেকে বালু উত্তোলন করায় স্থানীয়দের মধ্যে চাপা ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।ভাঙ্গন কবলিত এলাকা থেকে বালু উত্তোলন করায় বর্ষা মৌসুমে স্থানীয়রা তাদের ঘরবাড়ি নদীতে বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন।
 মহামান্য হাইকোটের ১৬৩৯২/২০১৭ নং রীট পিটিশন আদেশ অমান্য করে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যক্তিরা স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সুন্দরবন সংলগ্ন ভাঙ্গন কবলিত এলাকা থেকে ড্রেঞ্জার মেশিন দিয়ে লোকালয়ে বোরিং করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন অব্যহত রয়েছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে পরিবেশ ও জীব বৈচিত্র হুমকির মুখে পড়বে। বিস্তীন্ন এলাকা পরিবেশগত সংকটাপন্ন এলাকা হিসেবে গেজেটে ঘোষনা করা হয়েছে ৯ টি উপজেলা তার মধ্যে  শ্যামনগর উপজেলা রয়েছে। ১৪২৪ ও ১৪২৫ সালে শ্যামনগর উপজেলায় কোন বালু মহল ঘোষনা না হলেও স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন চলছে।সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার কৈখালী ইউনিয়ন সহ বেশ কয়েকটি ইউনিয়নে রাস্তার কাজে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে ভরাটের কাজ করছেন বিভিন্ন ঠিকাদার। সড়কের পাশে মৎস্য ঘের থেকে ড্রেঞ্জার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন কাজ অব্যাহত রেখেছে।  সরকারী ভাবে ঘোষিত বালু মহল ছাড়া অন্য কোন জায়গা থেকে বালু উঠানো সম্পূর্ন নিষেধ থাকলেও তা না মেনে প্রকৃতি ধ্বংষ করে প্রতিনিয়িত উপজেলার বিভিন্ন স্থানে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করে ব্যবসা পরিচালনা করে আসছে।স্থানীয় প্রভাবশালী নেতাকর্মীরাপ্রতি বছর অবৈধভাবে ঘনবসতি গ্রাম থেকে দিনরাত বালু উত্তোলন করা হলেও প্রশাসন কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছেন না। এবিষয়ে শ্যামনগর সহকারী কমিশনার ভূমি মোহাম্মদ শহিদুল্লাহ সাথে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। 
এবিষয়ে ড্রেজার মেশিন মালিক ইউনূসের কাছে জানতে চাইলে বলেন আমরা ঠিকাদরের মাধ্যমে  কাজ করি তবে ঠিকাদার বলে বিভিন্ন জায়গায় ম্যানেজ করে কাজ করতে হয়। 


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ