HEADLINE
বল্লীতে বজ্রপাতে শিশুর মৃ’ত্যু ভোমরা স্থলবন্দরে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টিকারীদের কোনভাবেই ছাড় দেওয়া হবে না বলাডাঙ্গায় জমি সংক্রান্ত বি’রো’ধে বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খু’ন বৈষম্যের প্রতিবাদে সাতক্ষীরা পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি সাতক্ষীরার উন্নয়ন ইস্যুতে ৫ এমপি’কে এক টেবিলে বসার আহবান সাতক্ষীরায় তামাক কোম্পানির বিজ্ঞাপণে সয়লাব, টার্গেটে কিশোর ও তরুণ সাতক্ষীরায় বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস পালন সাতক্ষীরার পর এবার মাগুরার সিভিল সার্জনের বিরুদ্ধে জনবল নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ! কলারোয়ায় এক কৃষকের ঝু’ল’ন্ত লা’শ উ’দ্ধা’র কলারোয়ায় স্বামীর পুরুষা’ঙ্গ কে’টে দ্বিতীয় স্ত্রী’র আ’ত্ম’হ’ত্যা
সোমবার, ২০ মে ২০২৪, ০৮:৩৩ অপরাহ্ন

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে এটাই কাম্য, দলের নীতি আদর্শ বাস্তবায়ন হোক সাম্য

রাজু ঘোষ / ৩৪৮
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২৩ জুন, ২০২৩

রাজু ঘোষ: স্যাংশন আর দাবারচালে সময়ের ঘোরটোপে বিশ্বরাজনীতি তে বাংলাদেশ আজ বিশাল ফ্যাক্টর সেটা ভৌগলিক কারনে জনসংখ্যা কিংবা গোর্য়াতুমীর বলদদের কারনে নয়। প্রতিবেশীরা সব সময় এমন প্রতিবেশী চায় যেনো নিরিবিলি শান্ত পরিবেশে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম সুন্দর স্বাভাবিক জীবন যাপন করতে পারে। পররাষ্টনীতি র ঘোড়ার চালে আমাদের বন্ধু রাষ্ট্র আমাদের দেশ অস্হির হোক সেটা কখনোই চাইবে না, মোদীজ্বি কিংবা সোনিয়াজি রাহুল কিংবা প্রিয়াঙ্কা, যোগী কিংবা যাদব সবার নীতিই এক থাকবে আমাদের রাষ্ট্রের জন্য। উলফার চোখ রাঙানি নিষিদ্ধ পূর্ববাংলা কমিউনিস্ট হালের জে ম বি কিংবা নতুন বাজারে আমদানি সমাজতন্ত্রের বাহারি পোশাকে মাত্তবারি আরব বসন্তের স্বপ্নে মশগুল হয়ে রাতে স্বপ্নদোষ হওয়া লোকগুলা অন্ধের রাজ্য বাস করছে । হ্যা ষড়যন্ত্র হবে অতীতে ছিলো ভবিষ্যৎ এ হবে তবে সেটা সুক্ষ চালে নিবিড় ভাবে পরাজিত হবে। আজ ২৩শে জুন দক্ষিন এশিয়ার সর্ববৃহত সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীগের। ৭৪ তম প্রতিষ্টাবার্ষকী সফলতম দল হিসাবে তারা সরকারে একটানা ১৪বছর অতিক্রম করছে, রাষ্টনায়ক হিসাবে জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ বিশ্বনায়কে রুপান্তারিত হয়েছে, এটা যেমন শতভাগসত্যি তেমনি দলের আদর্শ বাস্তবায়নে তারা তাদের লিখিত মুজিববাদ থেকে যোজন যোজন দূরে আছে সমসাময়িক প্রেক্ষাপটে অনেক ঘটনাই ঘটে চলেছে কিন্তু আদর্শহীনভাবে এটাও তেমন সত্যি। সত্য সততা যখন নির্বাসনে ভূমিপুত্র তখন সংখ্যালঘু। বঙ্গদেশের রঙ্গে ভরা মানুষ স্বাধীনতা কি? কেনো হয়েছিলো? কি করানে মুক্তিযুদ্ধ? এসব এদেশের একশ্রণীর জনগণের কাছে কোন বিষয় না তাদের কাছে লাইক কমেন্ট ভিউ এর মত সংখ্যাগরিষ্টাতাই বিচারক এরা নাগরিক থেকে সুনাগরিক হওয়ার জন্য বুকে দেশপ্রেম লালন করে না, এরা জনগন হয়ে ভোটার হতে চায় বূর্জেয়া পুজিবাদের গনতন্ত্রের সুবিধা হলো এখানে ডাকাত ও সেবক হয় নাগিরক নয় জন গন ই সব হয় তারঅর্থ যারা গননাই বেশি তারা ভোটে জিতে যায়, সুশাসন সুনাগরিক সৎ সততা আলাউদ্দীনের আশ্চর্য প্রদীপের মত এখানে ,এই মাটিতে সততা সংখ্যালঘু সত্য দূর্বল। অনেক মহান ব্যাক্তির জামানত বাজেয়াপ্ত হয়ে যায় আবার মোড়ের টোকাই হিরো যায় যায়, উর্বর ভূমিতে পাকিস্তানে যেমন গাধার বাম্পার ফলন হয়েছে তেমনি তাদের পূর্বসূরি হিসাবেআমরা ছাগল উৎপাদনে ৪র্থ হয়েছে। এখানে গনতন্ত্র মানে চা সিগারেট ভোটারদের দিতে হবে এটাই জেনো গণতান্ত্রিক অধিকার পাতি নেতা ছোট নেতা মাঝারি নেতা সবাইকে উপধৌকন দিয়ে বশীকরন যে বা যাহারা করতে পারবে ভোটের মাঠে সংখ্যাধিক্য র ভারে তারা বিজয়ী হবে।উন্নয়নটা ওমন ধরনের, অথচ এই দেশ টা স্বাধীন হয়েছিলো অত্যাচার নিপড়ীন চাপিয়ে দেওয়া অন্যায় লুটপাট সুষম বন্টন না করার কারনে মানুষের মধ্য জ্বলে ওঠা ক্ষোভের কারনে, অথচ এখনো একশ্রেনীর মানুষ আক্ষেপ করে স্বাধীন না হয়ে যদি বড় ভাইদের নিয়ন্ত্রনে থাকত তাহলে কতই না ভালো হত, অথচ বড় ভাইরা আজ অন্যদের দ্বারাপরিচালিত তারপরেও জঙ্গিবাদ আর অর্থনৈতিক দুরঅবস্হার কারনে সেই ৭১থেকে আজ ও মাথা উচুঁ করে তুলে দাড়াঁতে পারলো না। আমারা জনগন তাদের কে আইডল মনে করি, জোকারের কাজ মানুষকে হাসানো এখন জোকার যদি ভিউ বেশি করে ইনকাম করে জোকারের পেজে অনেক লাইক কমেন্ট শেয়ার হয় রঙ্গেভরা জনগন তাকে বানাবে আইডল তিনি হয়ে যাবেন কিছুদিন পর এই জাতির বিবেক, ইতিহাসের পরতে পরতে রহস্য লুকানো এই জাতির ভোটের বিষয়টা শুধুমাত্র গননাই সীমাবদ্ধ, এখানে নেতা হতে হয় প্রেসক্রিপশনে না হয় নিজস্ব কারখানা তৈরি করে সেই মানুষদের কে মিছিলে খাবার কিংবা টাকার বিনিময়ে ঘন্টা চুক্তিতে নিয়ে যেয়ে, , সত্য বলল্লে আমালাদের সেক্টরে তাকে ও এস ডি করা হয় নেতাদের সেক্টরে ঘটলে তাকে বহিঃষ্কার করাহয় আজ্ঞাবহ ক্রীতদাস না হলে প্রমোশন আটকে যায় সব সেক্টরে, সেখানে ভোটিং সিস্টেম টাই কেমন বেমানান আমার কাছে! ধান ভানতে শিবের গীত গাইলাম, বলছিলাম সংখ্যালঘু মানুষদের কথা পৃথীবিতে ৮০০০ধর্মের মানুষের মধ্য এই বঙ্গে জাতিতে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষ যারা, কর্মে সংখ্যালঘু সৎ সততা ন্যায়পরায়ন যারা তারা বিভিন্ন জাতির শাসনকালে এই উপমহাদেশের বহু সংমিশ্রিত জাতির উপনিবেশ ঘটেছে, বঙ্গে সবচেয়ে বেশি সংকরজাতির বসবাস করছে। তারা কোন ঘটনায় একমত হতে পারে না তারা দেশপ্রেমে জাগ্রত হতে পারে না তারা সবকিছুতেই বিনিময় খোজে, যাদের এই দেশটা নিয়ে ভাবার কথা ছিলো তাদের অধিকাংশ উন্নত ভবিষ্যৎপ্রজন্মের আশায় পৃথিবীর বিভিন্নদেশে স্হায়ী কিংবা অস্হায়ী ভাবে বসবাস করছে, যারা কাজের বিনিমিয়ে অর্থনৈতিক অবস্হা পরিবর্তনের জন্য গেছে তাদের হিসাব আলাদা, আবার যাদের ভবিষ্যৎ এ নেতৃত্ব দেওয়ার কথা সেই প্রজন্মের বেশির ভাগই এখন উড়ন্ত সময় পার করছে এখানে বসবাস করার উপযোগী না বলে বাইরে সেটেল হওয়ার জন্য, এক্ষেত্রে সকল পেশার একটু অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী ঘরের মানুষরা তাদের সন্তান কে নিরাপদে রাখার জন্য এ লেভেল কিংবা ও লেবেল থেকেই বাইরে পাঠানোর পক্রিয়ায় যুক্ত এখানে একটা বিষয় খুব পরিষ্কার সেটা ঠিক ঐ হিন্দু যেমন গরুর মাংস খায় না মুসলিম তেমন শুয়োর খাই না কিন্তু নারীর মাংসে কারোর ই জাত যায় না, তেমনি সম্পদ পাচারের কে গুরু কে লঘু এটা হিসাব না এখানে সবাই একই গোত্রের জেনো এটাই তাদের ই একটা আলাদা সম্প্রদায়, সময় এসেছে তারুন্যর জাগরনের যখন গভীর অন্ধকারে নিমজ্জিত থাকে চারিপাশ যেনো শেষ হয়ে ও হয় না শেষপ্রহরের রাত। তবুও আশায় থাকে চাষা নতুন সূর্য উঠবে বলে।
তেমনি ভাবে সত্যিকারের সোনার বাংলা গড়তে হলে এখনই সময় নতুন করে সবকিছু ঢেলে সাজানোর বাঙালি হিসাবে বিশ্বের বুকে মাথা উচুঁ করে দাড়ানোর। স্বাধীনতা এনে দেওয়া দল ও তাদের নেতৃত্বের কাছে এজন্য আমাদের প্রত্যাশা ও অনেক বেশি শুভ কল্যানময় হোক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্টাবার্ষকী। জয় হোক বিশ্বরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনার।
জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু

লেখক: রাজু ঘোষ, ছাত্রলীগ কর্মী


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ