বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০৪:০৯ পূর্বাহ্ন

তালায় মহামারীতে পাশে নেই জনপ্রতিনিধিরা!

খলিলুর রহমান, সাতক্ষীরা / ১৬৩
প্রকাশের সময় : রবিবার, ১১ জুলাই, ২০২১

দেশজুড়ে কঠোর লকডাউন পরিস্থিতি নিশ্চিত করতে কাজ করছেন সাতক্ষীরা তালা উপজেলা প্রশাসন, স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক থেকে শুরু করে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। গত ৫ জুন থেকে লকডাউন শুরু হলেও সাতক্ষীরা তালায় মাঠ পর্যায়ে কাজ করা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের কোন খোঁজ নেই অনুসন্ধানেও তাদের খুজে পাওয়া যাচ্ছে না। জনপ্রতিনিধিদের সাথে তাল মিলিয়ে বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়ে ও প্রশাসনের উদাসীনতায় লকডাউন মানছেনা কেউ। ইউপি ভোট ইস্যুকে কেন্দ্রকরে লকডাউন কার্যকরে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের অনীহা। লকডাউন অমান্যকারী জনপ্রতিনিধিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য সেনাবাহিনীর উপর আস্থা রাখছেন সবাই।

দীর্ঘ ১ মাস ৫ দিন ধরে কঠোর লকডাউন চললেও করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যুহার উল্লেখযোগ্যভাবে নিয়ন্ত্রণে আসছেনা। তালা উপজেলার বিভিন্ন স্থানের মানুষের অভিযোগ,লকডাউন শুরু হলেও মাঠ পর্যায়ে কাজ করা স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে বারং বার। এ ক্ষেত্রে এখনি জনপ্রতিনিধিদের কাজ শুরু করা প্রয়োজন বলে মনে করছেন সচেতন মহল। সাধারণ মানুষকে সচেতন করতে জনপ্রতিনিধিদের সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়ানো খুবই প্রয়োজন। স্বাস্থ্য বিভাগের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের সাথে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে করণীয় নিয়ে কাজ করা দরকার।


তথ্যমতে, করোনা নিয়ে মাথা ব্যাথা নেই জনপ্রতিনিধিদের। পাশে নেই জনগণের। এমপি, ইউপি চেয়ারম্যান,মেম্বারও জনগণের পাশে নেই। নামমাত্র দুই একজন জনপ্রতিনিধি করোনা প্রতিরোধে কাজ করলেও অধিকাংশ জনপ্রতিনিধির এ নিয়ে কোন মাথা ব্যথা নেই। তবে জনপ্রতিনিধিদের এসময় সব বেশি ভূমিকা পালন করার কথা থাকলেও তারা জনগণ থেকে পিছিয়ে রয়েছে। আর এ নিয়ে চলছে নানা আলোচনা-সমালোচনা ঝড়। সচেতন মহলের মতে,করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনপ্রতিনিধিরা মাঠে নামলে মানুষ গুরুত্ব দিয়ে বিষয়টি মেনে নিয়ে আরও বেশি সচেতন হবেন। তবে, জনপ্রতিনিধিরা কী কারণে এ বিষয়টিকে গুরুত্ব দিচ্ছেন তা এখন প্রশ্নবিদ্ধ। তবে জনপ্রতিনিধিদের কাজ না করার পেছনে আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে দায়ী করছেন অনেকে। তাদের ভাষ্যমতে, জনপ্রতিনিধিরা যদি কঠোর হয় তাহলে হয়তো তাদের ভোট কমে যেতে পারে। এ আশঙ্কায় লকডাউন বাস্তবায়নে কার্যকর কোন ভূমিকা রাখছেন না তারা।

এ বিষয়ে জেলার অধিকাংশ মানুষদের সাথে কথা হলে তারা জানান, জনপ্রতিনিধিদের পাশাপাশি প্রশাসনের কিছু বিতর্কিত কর্মকান্ডে লকডাউন মানছেননা কেউ। যে সমস্ত জনপ্রতিনিধি লকডাউন বাস্তবায়নে ভূমিকা না রেখে বরং বিতর্কিত কর্মকান্ডে জড়িয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা জরুরী। লকডাউন কার্যকরে স্থানীয় পর্যায়ের জনপ্রতিনিধিদের ভূমিকা সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। তাদের দায়িত্ব নিয়ে কোনপ্রকার নয়-ছয়ে করলে হবে না।

০৮/০৭/২০২১ তারিখ সাতক্ষীরা মেডিকেলের পিসিআর ল্যাবে মোট ২৮৫ জনের কোভিড-১৯ টেষ্ট করা হয়।তারমধ্যে ৯২ জনের করোনা পজেটিভ। তালা উপজেলায় পজেটিভ-০৩ জন ০৮/০৭/২০২১ র‌্যাপিড এন্টিজেন টেস্ট’ তালা উপজেলায় স্যাম্পল কালেকশন মোট- ৭০ জন,পজেটিভ- ১৪ জন নেগেটিভ ৫৬।

১ জুন হতে জুলাই ১০ তারিখ পর্যন্ত তালা উপজেলায় মোট স্যাম্পল কালেকশন ৮৭১ জন তার মধ্যে পজেটিভ ৪৮৫ জন, হোম কোরেন্টাইন ৪৮৫ জন। সর্বমোট স্যাম্পল কালেকশন ১৫৬৪ জন পজেটিভ ৬৫৩ জন মৃত ১০ জন।

তালা উপজেলা চেয়ারম্যান ঘোষ সনৎ কুমার জানিয়েছেন,উপজেলা প্রশাসন থেকে সাহায্য সহযোগীতা করা হচ্ছে। মুলত ৫০০ জনের জায়গায় সহযোগীতা পাচ্ছে ৫০ জন এজন্য জনপ্রতিনিধিদের কিছুটা বিতর্কের মধ্যে পড়তে হচ্ছে। আমরা উপজেলা আওয়ামীলীগের পক্ষ থেকে করোনা মহামারীতে সর্বদা মানুষের পাশে আছি।

এ বিষয়ে তালা-কলারোয়া ১ আসনের সংসদ সদস্য এ্যাডঃ মোস্তফা লুৎফুল্লাহ জানিয়েছেন,স্থানীয় নির্বাচনীয়তার কারনে কিছুটা জটিলতার সৃষ্টি হচ্ছে। ইউনিয়ন থেকে ওয়ার্ড পর্যায়ে করোনা প্রতিরোধ কমিটি পঠন করতে হবে। জন প্রতিরোধ গড়ে তোলা ছাড়া করোনা প্রতিরোধ করা সম্ভাব নয়।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ