ডুমুরিয়ায় আহত শ্রমিকের চিকিৎসার দাবীতে বিদ্যালয় নির্মাণ বন্ধ

ডুমুরিয়ায় আহত শ্রমিকের চিকিৎসার দাবীতে বিদ্যালয় নির্মাণ বন্ধ

নিজস্ব প্রতিনিধি :
খুলনায় ডুমুরিয়া উপজেলায় আটলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চমতলা ভবন নির্মাণে কোন প্রকার সেফটি না থাকায় ৪ তলা হতে মুসলিমিন হাসান (৩০) নামের এক শ্রমিক মাটিতে পড়ে মারাত্মক ভাবে আহত হয়ে বর্তমান ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে যুদ্ধ করছে। গত ৩ নভেম্বর ঘটনাটি আটলিয়া ঘটে এ মর্মান্তিক দূর্ঘটনার শিকার হয় মুসলিমিন হাসান। প্রাথমিকভাবে তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসার উন্নতি না হওয়ায় সাতক্ষীরা মেডিকেলে স্থানান্তর করে। সেখানে স্বাস্থ্যের অবনতি ঘটলে তাকে খুলনা মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানেও অবস্থার অবনতি হলে ঢাকা পঙ্গু হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। দিনমজুর মুসলিমিন হাসান পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি। তার বিধবা মাতা ২ সন্তান ও স্ত্রী বর্তমান মানবেতর জীবন যাপন করছে। নিজেদের যা কিছু ছিলো সর্বস্ব খুইয়ে বিষয়টি তালা উপজেলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নে লিখিত অভিযোগ করে। ঘটনার পর থেকে স্কুল নির্মাণের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান কোন খোঁজখবর না নেওয়ায় বুধবার সকালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ নির্মাণ শ্রমিকলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক আবু দাউদের নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামীলী নির্মাণ শ্রমিকলীগ সাতক্ষীরা জেলা শাখার সভাপতি জিএম শফিউর রহমান (ডানলাপ), বাংলাদেশ আওয়ামী নির্মাণ শ্রমিকলীগ তালা উপজেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম, পাটকেলঘাটা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি কবির হোসেন, তালা উপজেলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি আরমান আলী মোড়ল, তালা উপজেলা ইমারত নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের সাংগঠনিক সম্পাদক কেন্দ্রীয় কমিটির অন্যতম নেতা নুরুল ইসলাম খোকা, পাটকেলঘাটা ইমারত নির্মাণ ইউনিয়নের সভাপতি হযরত আলী খোকন, সাংগঠনিক সম্পাদক সুজাউদ্দীন মিঠু, আমিনুল ইসলাম সহ চুকনগর ইমারত নির্মাণ নির্মাণ শ্রমিক ইউনিয়নের নেতাদের উপস্থিতিতে আটলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কাজ বন্ধ করে কর্মরত শ্রমিকদের যন্ত্রপাতি নিয়ে চলে আসে। সেখানে তারা বলেন, যতক্ষণ পর্যন্ত আহত শ্রমিকের চিকিৎসার ব্যবস্থা না হবে ততক্ষণ পর্যন্ত আটলিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নির্মাণ কাজ বন্ধ রাখা হবে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান সেফটির ব্যবস্থা না করে নিয়মিতভাবে অসহায় শ্রমিকদের মৃত্যুর মুখে ফেলে দিচ্ছে তা মেনে নেয়া হবে না। আহত শ্রমিকের চিকিৎসার ব্যবস্থা করা না হলে দূর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার হুমকি দেন।

Print Friendly, PDF & Email
এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন