বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ০২:৫৫ পূর্বাহ্ন

ঝাউডাঙ্গায় সরকারি জায়গায় অবৈধভাবে দোকান নির্মাণ : ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ

মোমিনুর রহমান সবুজ / ৭৯
প্রকাশের সময় : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১

কঠোর লকডাউনের মধ্যে সারাদেশের ন্যায় সাতক্ষীরার ঝাউডাঙ্গা বাজার যখন প্রায় জনশূন্য সেই সুযোগে জনসাধারণ ও প্রশাসনের চোখ ফাঁকি দিয়ে মৃত ব্যক্তির নামে অর্ধশতক জায়গার ডিসিআর নিয়ে তিন শতক জায়গার উপরে প্রকাশ্যে সরকারি জায়গা দখল করে দুইটি দোকান ঘর নির্মাণের অভিযোগ উঠেছে।

এলাকাবাসী অভিযোগ করে বলেন, সাতক্ষীরা সদর উপজেলার ঝাউডাঙ্গা ভূমি অফিস সংলগ্নে সরকারি জায়গায় নিয়মবহির্ভূত ভাবে দুইটি অবৈধভাবে দোকান ঘর নির্মাণ করায় জনমনে প্রশ্ন উঠেছে। ঝাউডাঙ্গা ইউনিয়নের পাথরঘাটা গ্রামের স্কুল শিক্ষক হাসানের স্ত্রী সালমা লিশার নামে অর্ধশতক ও তার পিতা মৃত মোহাম্মদ আলীর নামে অর্ধশতক ডিসিআর ও সংস্কারের অনুমতি নিয়ে তিন শতকের উপর জায়গা দখল করে দুইটি দোকান নির্মাণ করার চেষ্টা করছে। জানা গেছে শিক্ষক হাসানের পিতা মোহাম্মদ আলী ২০ বছর আগে মারা গেছেন। কিন্তু মৃত ব্যক্তির নামে কীভাবে ডিসিআর হলো এ নিয়ে কৌতুহল তৈরী হয়েছে।

সরেজমিনে শুক্রবার সকালে দেখা যায়, সরকারি ওই খাস জায়গায় পুরাতন কাঠের তৈরী ঘর না ভেঙে ভিতরে বড় বেজ তৈরী করে কয়েকজন শ্রমিক দিয়ে তড়িঘড়ি করে কর্মযোগ্য চলছে। এতে বাজারের অন্য ব্যবসায়ীরা ক্ষোভ প্রকাশ করছেন। ব্যবসায়ীরা মনে করেন, তার দেখাদেখি অন্যান্যরাও বাজারে থাকা সরকারি খাস জায়গায় আরও দোকান নির্মাণ করার পাঁয়তারা করবেন।

এ বিষয়ে স্কুল শিক্ষক হাসানের স্ত্রী সালমা লিশা বলেন, আমার স্বামী (শিক্ষক হাসান) আওয়ামীলীগ করে। আমার নামে ও আমর শশুর মোহাম্মদ আলীর নামে ডিসিআর ও সংস্কারের অনুমতি নিয়ে কাজ করছি। বাজারে তো অনেক লোক জায়গা দখল করে দোকান তৈরী করছে। এ বিষয়ে আর কিছু বলতে চাচ্ছিনা। পরে শুক্রবার বিকালে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা, ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা ও স্থানীয় যুবলীগ নেতাদের হস্তক্ষেপে অবৈধ স্থাপনার বন্ধ হয়ে যায়।

এ বিষয়ে সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফাতেমা-তুজ জোহরা জানান, বিষয়টি আমার জানা নেই। আমি এখনই স্থানীয় ভুমি কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য বলছি। ইউনিয়ন ভূমি কর্মকর্তা আব্দুল বারী বলেন, এলাকাবাসী ও ব্যবসায়ীদের অভিযোগ পেয়ে ও তাৎক্ষণিক সদর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তার নির্দেশে এ অবৈধ স্থাপনা বন্ধের জন্য নোটিশ দিয়েছি। তারপরেও যদি নির্দেশ অমান্য করে কাজ করে তাদের ডিসিআর বাতিল করা হবে।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ