HEADLINE
ঝাউডাঙ্গা ভূমি অফিসের তহসিলদারের বিরুদ্ধে নানা অনিয়মের অভিযোগ দাঁতভাঙা বিলে মৎস্য ঘের থেকে অজ্ঞাত নারীর লা’শ উদ্ধার মুখে মাস্ক পরে দেবহাটায় একরাতে ৪টি দোকানে চুরি ভাগ্য খুলতে পারে খুলনা জেলা ছাত্রলীগের! স্কুল ম্যানেজিং কমিটি গঠনে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ সাতক্ষীরায় বেসরকারি ক্লিনিকে অভিযানে ভুয়া চিকিৎসকসহ দু’জনের কারাদণ্ড সাতক্ষীরা হার্ট ফাউন্ডেশনে সেবিকার কর্তব্য অবহেলায় বৃদ্ধার মৃ’ত্যুর অভিযোগ ডুমুরিয়ায় দুই শিশু সন্তানকে বালিশ চা’পা দিয়ে হ’ত্যার পর মায়ের আত্মহ’ত্যা ভোমরা প্রেসক্লাবের কমিটি গঠন : সভাপতি জাহাঙ্গীর, জিয়া সাধারণ সম্পাদক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অর্থনীতির চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে হবে
রবিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০১:৪৯ অপরাহ্ন

জমির মালিকদের জিম্মি করে টাকা নিচ্ছে জমি মাপা আমিনরা

টিটু মিলন, বেনাপোল / ৩৮২
প্রকাশের সময় : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১

যশোরের শার্শা উপজেলায় জমির মালিকদের জিম্মি করে জোরপূর্বক টাকা আদায় করছে জমি মাপা আমিনরা।অনেকেই অভিযোগ করে বলেন ২/৩ বছর আগে জমি মাপা আমিনরা জমি মাপতে টাকা নিতেন এক থেকে দেড় হাজার টাকা।বর্তমানে তারা নিচ্ছেন ৮/১০ হাজার টাকা।


মাপের আগে তাদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন ফোনে দিন দেওয়া যাবে না বাড়িতে আসেন। বাড়িতে যাওয়ার পর খাতা কলম নিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে বলেন এতো তারিখে যেতে পারবো।এ পর শুরু হয় দর কষাকষি।চাওয়া হয় ১০/১২ হাজার টাকা।শেষে এসে দাড়ায় ৮ হাজার টাকায়।এরা খুব বড় মাপের আমিন বলে প্রচার করে থাকেন। এ জন্য তাদের রেট বেশি।তারা যে জমি মাপতে সময় লাগে দুই ঘন্টা সেখানে টাকা বেশি নেওয়ার কারনে সারাদিন কাটিয়ে দেন বলে জানিয়েছেন ভোক্তভোগীরা।শার্শা উপজেলা পুটখালী ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের মেম্বার পদপ্রার্থী আক্তারুজ্জামান আক্তার মোবাইলে বলেন বর্তমানে গরীবদের জন্য জমি মাপা খুব কষ্টকর হয়ে পড়েছে।তারা জোরপূর্বক ভাবে টাকা নিচ্ছে ।অনেকে জমি মাপার আগে আমিনের টাকা জোগাড় করতে না পেরে ছাগল সহ বিভিন্ন জিনিস নষ্ট করে থাকে।

বেনাপোল পৌর ৩ ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন বলেন শার্শা উপজেলায় বর্তমানে যে সমস্ত জমি মাপা আমিন আছে তারা যেন সোনার হরিণ। গরীব মানুষের জন্য জমি মাপা কঠিন হয়ে পড়েছে।অনেকের জমি নিয়ে গেমজাম চলছে কিন্তু আমিনের টাকা জোগাড় করতে না পেরে সে ঝামেলা মিটাতে পারছে না।আমিনদের রেট কমানো উচিত।

শার্শা উপজেলা জমি মাপা আমিন সমিতির সভাপতি মশিয়ার রহমান জানান আমাদের নির্ধারিত কোন রেট বাধা নেই।আমার কাছেও অভিযোগ আসছে কিছু কিছু আমিন অনেক টাকা নিচ্ছে।এ বিষয়ে সবাই কে নিয়ে বসা হবে।


এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজা জানান,আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি।যদি জমির মালিকদের জিম্মি করে টাকা আদায় করে সেটা দুঃখ জনক। খোঁজ খবর নিয়ে বিষয়টি দেখা হবে।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ