HEADLINE
শ্যামনগরে ইটভাটায় জ্বালানি হিসাবে ব্যবহার হচ্ছে কাঠ সাতক্ষীরায় ঔষধ ফার্মেসী থেকে ৯ হাজার পিচ নেশাদ্রব্য ট্যাবলেটসহ গ্রেপ্তার ২ জমকালো আয়োজনে ঝাউডাঙ্গায় ৮ দলীয় ফুটবল টুর্ণামেন্ট উদ্বোধন যশোরের কেশবপুরে কোটি কোটি টাকার সোলার স্ট্রিট লাইট নষ্ট! ভূয়া এতিম দেখিয়ে বছরের পর বছর সরকারি অর্থ আত্মসাৎ! ঝাউডাঙ্গায় মেয়াদবিহীন ও লাইসেন্স ছাড়া চলছে বেকারী পণ্য বাজারজাতকরণ ছাত্র-ছাত্রীদের পাঠদানে ফিরে আনা জরুরী ঝাউডাঙ্গায় গলায় ফাঁস দিয়ে কলেজ ছাত্রের আত্মহত্যা নলতায় ডা: ছবুরের বাড়ীতে দুর্ধর্ষ চুরি, টাকাসহ স্বর্ণালংকার লুট  স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের নারী ও যুববান্ধব বাজেটের অন্তরায়
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:৩১ পূর্বাহ্ন

জমির মালিকদের জিম্মি করে টাকা নিচ্ছে জমি মাপা আমিনরা

টিটু মিলন, বেনাপোল / ২৬২
প্রকাশের সময় : রবিবার, ১ আগস্ট, ২০২১

যশোরের শার্শা উপজেলায় জমির মালিকদের জিম্মি করে জোরপূর্বক টাকা আদায় করছে জমি মাপা আমিনরা।অনেকেই অভিযোগ করে বলেন ২/৩ বছর আগে জমি মাপা আমিনরা জমি মাপতে টাকা নিতেন এক থেকে দেড় হাজার টাকা।বর্তমানে তারা নিচ্ছেন ৮/১০ হাজার টাকা।


মাপের আগে তাদের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন ফোনে দিন দেওয়া যাবে না বাড়িতে আসেন। বাড়িতে যাওয়ার পর খাতা কলম নিয়ে একটু নাড়াচাড়া করে বলেন এতো তারিখে যেতে পারবো।এ পর শুরু হয় দর কষাকষি।চাওয়া হয় ১০/১২ হাজার টাকা।শেষে এসে দাড়ায় ৮ হাজার টাকায়।এরা খুব বড় মাপের আমিন বলে প্রচার করে থাকেন। এ জন্য তাদের রেট বেশি।তারা যে জমি মাপতে সময় লাগে দুই ঘন্টা সেখানে টাকা বেশি নেওয়ার কারনে সারাদিন কাটিয়ে দেন বলে জানিয়েছেন ভোক্তভোগীরা।শার্শা উপজেলা পুটখালী ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের মেম্বার পদপ্রার্থী আক্তারুজ্জামান আক্তার মোবাইলে বলেন বর্তমানে গরীবদের জন্য জমি মাপা খুব কষ্টকর হয়ে পড়েছে।তারা জোরপূর্বক ভাবে টাকা নিচ্ছে ।অনেকে জমি মাপার আগে আমিনের টাকা জোগাড় করতে না পেরে ছাগল সহ বিভিন্ন জিনিস নষ্ট করে থাকে।

বেনাপোল পৌর ৩ ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন বলেন শার্শা উপজেলায় বর্তমানে যে সমস্ত জমি মাপা আমিন আছে তারা যেন সোনার হরিণ। গরীব মানুষের জন্য জমি মাপা কঠিন হয়ে পড়েছে।অনেকের জমি নিয়ে গেমজাম চলছে কিন্তু আমিনের টাকা জোগাড় করতে না পেরে সে ঝামেলা মিটাতে পারছে না।আমিনদের রেট কমানো উচিত।

শার্শা উপজেলা জমি মাপা আমিন সমিতির সভাপতি মশিয়ার রহমান জানান আমাদের নির্ধারিত কোন রেট বাধা নেই।আমার কাছেও অভিযোগ আসছে কিছু কিছু আমিন অনেক টাকা নিচ্ছে।এ বিষয়ে সবাই কে নিয়ে বসা হবে।


এ ব্যাপারে শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মীর আলিফ রেজা জানান,আমার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি।যদি জমির মালিকদের জিম্মি করে টাকা আদায় করে সেটা দুঃখ জনক। খোঁজ খবর নিয়ে বিষয়টি দেখা হবে।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ