HEADLINE
পরিবারের সবাইকে অজ্ঞান করে ১০ লক্ষ টাকার মালামাল লুট! বাংলাদেশের মেয়েরা এখন আর পিছিয়ে নেই এমপি রুহুল হক ভোমরায় পাসপোর্ট যাত্রীদের তল্লাশির নামে বিজিবির হয়রানি সাতক্ষীরা পৌরমেয়র চিশতিসহ পৌর বিএনপির ১০ নেতা আটক শাশুড়ির কামড়ে জামাইয়ের কান ও জামাইয়ের কামড়ে শাশুড়ির হাতের শিরা বিছিন্ন কালিঞ্চী এ. গফ্ফার মাধ্যঃ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বন্দে আদালতে মামলা বৈকারীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ চোরাকারবারি গ্রেপ্তার রাত পোঁহালেই দেবহাটা প্রেসক্লাবের নির্বাচন সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগ নেতাকে অস্ত্রকান্ডে ফাঁসিয়ে ভারতে পালালেন মূলহোতা নির্বাচন নিয়ে ভাবার কিছু নেই, আমরা গণতান্ত্রিক দল : সাতক্ষীরায় আ.ক.ম মোজাম্মেল হক
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৩২ পূর্বাহ্ন

কেশবপুরে ধান রক্ষায় শিকারি বিড়াল দিয়ে ইঁদুর ধরা হচ্ছে

উৎপল দে, কেশবপুর / ২৪১
প্রকাশের সময় : সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১

যশোরের কেশবপুরের কৃষকেরা আমন ধান ক্ষেতে ইঁদুরের উৎপাতে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন । ইঁদুর নিধনে জিংক পাউডার, গ্যাস ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন বিষ টোপ ব্যবহার করেও কোনো লাভ হচ্ছে না। ঠেকানো যাচ্ছে না ইঁদুরের উৎপাত। এর ফলে প্রায় ৭ থেকে ৯ ভাগ আমন ধান নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। তাই ধান রক্ষায় কৃষক এখন শিকারি বিড়াল দিয়ে ইঁদুর ধরা শুরু করেছে।

সরেজমিনে উপজেলার মজিদপুর, আটন্ডা, দেউলি, সাতবাড়িয়া, ভালুকঘর, বারুইহাটি, শিকারপুরসহ বিভিন্ন গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, মাঠের পর মাঠ জুড়ে সবুজ ধান ক্ষেতে ইঁদুরের উৎপাত। ক্ষেতের জমিতে পানি না থাকার কারণে উৎপাত শুরু করেছে ইঁদুরের দল। ইঁদুর বেড়ে ওঠা ধান গাছ কেটে টুকরো টুকরো করে ফেলছে । ওই সব জমিতে ধান গাছ হলুদ বর্ণ ধারণ করে মরে যাচ্ছে।


এলাকার কৃষকরা জানান, ইঁদুর নিধনে জিংক পাউডার, গ্যাস ট্যাবলেটসহ বিভিন্ন বিষ টোপ ব্যবহার করে কোনো লাভ হচ্ছে না। এ বছরও আমন ধান ক্ষেতে ইঁদুরের উৎপাত শুরু হলে কৃষকেরা উপজেলা কৃষি অফিস ও স্থানীয় উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তাদের পরামর্শে বিভিন্ন পদ্ধতি প্রয়োগ করেন। কিন্তু তাতেও আশানুরুপ সফলতা না পেয়ে ইঁদুর নিধনে মাটি পড়া থেকে শুরু করে অধিকাংশ কৃষক নিজের মত করে বিভিন্ন পদ্ধতি প্রয়োগ করছেন।

উপজেলার মজিদপুর গ্রামের কৃষক আব্দুল হালিম বলেন, ধান কেটে মাটিতে পাতানোর পর ইঁদুরের উৎপাত ঠেকাতে তিনি নিজের পোষা শিকারী বিড়াল ধান ক্ষেতে রেখে আসেন। বিড়াল ইঁদুরও ধরছে। তারপরও ইঁদুরের উৎপাত কমছে না। সাতবাড়িয়া গ্রামের কৃষক আবুল হোসেন জানান, তিনি বিষটোপ ব্যবহার করে দুই রাতে ১৫টি ইঁদুর মেরেছেন। প্রতিটি ইঁদুরের ওজন ২৫০ গ্রাম থেকে প্রায় আধা কেজি। দেউলি গ্রামের কৃষক মিজানুর রহমান জানান, তিনি উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তার পরামর্শ মতে সব পদ্ধতি ব্যবহার করে কাজ না হওয়ায় আবু নছর নামে একজন গুনীন ডেকে এনে মন্তর দিয়ে পড়া মাটি ধান খেতে ছিটিয়ে নিয়েছেন।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ