HEADLINE
পরীক্ষার সময় পরিবহন চলা নিয়ে নিশ্চিত নয় জবির পরিবহন পুল উপকূলে সংকট বাড়ছে, সংকট সমাধানে প্রয়োজন সুপেয় পানি সহ টেকসই বেড়িবাঁধ খলিশাখালিতে প্রতিবাদ সমাবেশ, প্রশাসনের সহযোগীতা চান ভূমিহীনরা একটি ছবি হয়ে উঠেছে আদর্শ ও অনুপ্রেরণা উৎস : তথ্য প্রতিমন্ত্রী খুলনায় ইউপি ভবন থেকে অস্ত্র-গুলিসহ গ্রেফতার ৩ আশাশুনিতে পারস্পরিক শিখন প্রাতিষ্ঠানিকীকরণে অভিজ্ঞতা বিনিময় সফর বল্লীতে বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা কেশবপুরের বিল খুকশিয়ায় মাছের ঘেরের বেড়িতে তরমুজ চাষে কৃষকের সাফল্য সাতক্ষীরা রেঞ্জের অভয়ারণ্য থেকে ৩ জেলেসহ মাছ ধরা ট্রলার আটক অসহায় মানুষের পাশে “আল নূর” পরিবার
শুক্রবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:১৮ অপরাহ্ন

কলারোয়ায় সেই প্রতারক কলেজ প্রভাষক ও তার সহযোগীর বিরুদ্ধে পিবিআই তদন্ত শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক / ২৪৬
প্রকাশের সময় : শনিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

বিদেশে উচ্চ বেতনের চাকুরী দেওয়ার নামে সাত লাখ টাকা আত্নসাতকারী কলারোয়ার বেগম খালেদা জিয়া কলেজের সেই প্রতারক প্রভাষক আমিরুল ইসলাম(৫০) ও তার সহযোগী কলারোয়ার মির্জাপুর গ্রামের নূর ইসলাম খোকনের ছেলে নাজমুল হোসেন(৪৫) এর বিরুদ্ধে মামলার ঘটনায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)’র তদন্ত শুরু হয়েছে। এ ঘটনায় শনিবার ১১ই সেপ্টেম্বর বিকালে সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের ‘পিবিআই’ তদন্তে যান।

উল্লেখিত মামলার বিবরণে জানা যায়, বেকারত্বের হতাশার সুযোগ কাজে লাগিয়ে ইউরোপ মহাদেশের সাইপ্রাসে উচ্চ বেতনের চাকুরী দেওয়ার নাম করে ভূয়া নিয়োগ তৈরীসহ বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে কলারোয়া উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল রশিদের ছেলে উজ্জল হোসেনের(২৭) পরিবারে কাছ থেকে প্রধান আসামী তালা উপজেলার ধানদিয়া ইউনিয়নের মানিকহার গ্রামের মৃত ইব্রাহিম সরদারের ছেলে কলারোয়ার বেগম খালেদা জিয়া কলেজের প্রভাষক আমিরুল ইসলাম ও তার সহযোগী কলারোয়ার মির্জাপুর গ্রামের নূর ইসলাম খোকনের ছেলে নাজমুল হোসেনের বিরুদ্ধে সাত লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ভুক্তভোগী উজ্জল হোসেন বাদী হয়ে গত ৫ই সেপ্টেম্বর বিজ্ঞ আদালতে বিভিন্ন ধারায় মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং- সি, আর- ২০৫/২১। উল্লেখ থাকে যে, প্রতারক প্রভাষক আমিরুল ও তার সহযোগী নাজমুল হোসেন প্রথমে উজ্জ্বলের পাসপোর্ট ও নগদ ১ লক্ষ টাকা ও পরে বিদেশ যাওয়ার দিন বিমান বন্দর থেকে প্লেনে উঠলে কথা মত বাদী উজ্জ্বলের পিতার নিকট থেকে নগদ ৬ লক্ষ টাকা নেন তারা। তারপর বাদী উজ্জ্বলের পিতাকে মোবাইলে প্রতারক আসামীগণ জানালেন তার ছেলে প্রথমে ৪দিন দুবাই থাকার পর সাইপ্রাসে চাকুরী জন্য যাবে। কিন্তু ভুক্তভোগী বাদী উজ্জ্বল দুবাই প্লেন থেকে নামার পর ঘন্টার পর ঘন্টা বসে থেকেও কেউ যখন তাকে নিতে না আসাই তখন তার মনে সন্দেহের সৃষ্টি হয়। উজ্জ্বল তখন অসহায় পড়লেন ও বুঝতে পারলেন সে প্রতারণার শিকার হয়েছেন। উজ্জ্বল সকল ভূয়া নিয়োগ পত্র ও কাগজপত্রাদী নিয়ে জীবন বাঁচানোর জন্য সেখানে থাকা সম্পর্কের মামার সহযোগিতায় প্লেনের টিকিট কেটে দ্রুত বাংলাদেশে ফিরে আসেন। বাড়িতে ফিরে যাবতীয় খরচসহ আসামীগণের কাছে ৮ লক্ষ ২০ হাজার টাকা ফেরৎ চাইলে আসামীরা বলেন কীসে টাকা, কোথাকার টাকা?। ভুক্তভোগী উজ্জল তার উল্লেখিত অর্থ ফেরৎ পাওয়ার লক্ষে ঘটনার স্বাক্ষী ও উক্ত আসামীদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানাসহ ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তের দাবি করেছেন দালাল চক্রের প্রতারণার শিকার ভুক্তভোগী পরিবার।এ ঘটনায় বিজ্ঞ আমলী আদালত নং- ০৪ (কলারোয়া), সাতক্ষীরার বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট রাজিব রায় আদালতে অভিযোগ আমলে নিয়ে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) কে তদন্তের নির্দেশ দেয়ার পেক্ষিতে তদন্ত শুরু হয়েছে।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ