কচুয়া উপজেলা ছাত্র দলের কমিটি ঘোষণা,পদত্যাগের গুঞ্জন

কচুয়া উপজেলা ছাত্র দলের কমিটি ঘোষণা,পদত্যাগের গুঞ্জন

উজ্জ্বল কুমার দাস (কচুয়া,বাগেরহাট) প্রতিনিধি

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির সহযোগী সংগঠন কচুয়া উপজেলা ছাত্রদলের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়েছে।

গতকাল ১২-ই জানুয়ারী জেলা ছাত্রদলের সভাপতি ইমরান খান সবুজ ও বাগেরহাটের জেলা ছাত্রদলে সাধারণ সম্পাদক আলী সাদ্দাম আহমেদ দ্বীপ স্বাক্ষরিত কমিটির তালিকা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক সহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রকাশ করেন।এর আগেও বেস কয়েকটি উপজেলা ও কলেজ কমিটি ঘোষণা হয়েছে।

একিদিন মংলা পৌর শাখার আহবায়ক কমিটি ও ফকিরহাট উপজেলার আহবায়ক কমিটি প্রকাশ করেন।প্রতিটি ইউনিটিতে ২১ জন করে সদস্য রাখা হয়েছে।

২১ সদস্য বিশিষ্ট কচুয়া উপজেলা কমিটিতে আহবায়ক করা হয়েছে কচুয়া উপজেলার বাধাল ইউনিয়নের রানা দিদার ও সদস্য সচিব করা হয়েছে কচুয়া উপজেলার ধোপাখালি ইউনিয়নের শাওন সরদারকে।এছাড়াও যুগ্ম আহবায়ক করা হয়েছে ১০ জন ও সদস্য হিসাবে রাখা হয়েছে ০৯ জনকে।

তবে গতকাল কমিটি প্রকাশের পর-পর কমিটির ০৩ নং যুগ্ম-আহবায়ক হিসাবে স্থান পাওয়া মঘিয়া ইউনিয়নের শাওন খান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে তাৎক্ষণিক এক  প্রতিক্রিয়ায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন।যদিও কিছু সময় পর তা ফেসবুক থেকে সরিয়ে ফেলেছেন।  

তার দেওয়া স্টাটাসটি হুবাহু তুলে ধরা হলো-

আমি সেচ্ছায়,সজ্ঞানে,সুস্থ মস্তিষ্কে নবগঠিত কচুয়া উপজেলা ছাত্র দলের কমিটির যুগ্ম-আহবায়ক পদ থেকে পদত্যাগ করলাম। এবং যারা আমাকে অপমান করার জন্য, এখানে নাম দিয়েছে,সেই বিভাগীয় টিমের সজীব,জেলা মেয়াদ উত্তীর্ণ সবুজ ও আলী সাদ্দাম আহমেদ দ্বীপের পদত্যাগ দাবি করছি।ধন্যবাদ সবাইকে দোয়া করবেন।শীঘ্রই ,পদত্যাগ পত্র ও নোটিশ,কেন্দ্রীয় দপ্তরে পৌঁছে দেওয়া হবে।

এছাড়াও এ কমিটি নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন নাম প্রকাশ না করা আরো কিছু ছাত্র দলের নেতা কর্মী।তারা বলেন কমিটি গঠনে অনেক ত্যাগী ও পরিশ্রমি নেতা কর্মী কমিটি স্থান পায়নি।ছাত্রদলের রাজনীতির সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত নয় এমন অনেকেই নবগঠিত কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে যা দলের জন্য অশনি সংকেত।দলের এই দুর্দিনে যা সংগঠনের শক্তিকে দুর্বল করবে।এটা ছাত্র দলের জন্য কখনোই কাম্য নয়।

তবে নবগঠিত কমিটির অনেকেই নতুন কমিটিকে সময় উপযোগী পদক্ষেপ বলে মনে করছেন।তারা আশা ব্যক্ত করেন দীর্ঘ সময় পর ছাত্র দলের এই কমিটি পেয়ে ছাত্র দলের মধ্যে কিছুটা স্বস্তি ফিরে এসেছে।দ্রুত সময়ের মধ্যে ছোটখাটো ভুলবোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে ছাত্রদলের সাংগঠনিক শক্তি আরো বৃদ্ধি পাবে।ছাত্রদলের হাত ধরেই গনতন্ত্র পুনরুদ্ধার হবে বলে মনে করেন তারা।এখন দেখার বিষয় নবগঠিত কমিটি মাঠের রাজনীতিতে কতটা সক্রিয় ভূমিকা নেয়।

Print Friendly, PDF & Email
এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন