HEADLINE
কালিঞ্চী এ. গফ্ফার মাধ্যঃ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন বন্দে আদালতে মামলা বৈকারীতে ১’শ পিস ইয়াবাসহ চোরাকারবারি গ্রেপ্তার রাত পোঁহালেই দেবহাটা প্রেসক্লাবের নির্বাচন সাতক্ষীরায় ছাত্রলীগ নেতাকে অস্ত্রকান্ডে ফাঁসিয়ে ভারতে পালালেন মূলহোতা নির্বাচন নিয়ে ভাবার কিছু নেই, আমরা গণতান্ত্রিক দল : সাতক্ষীরায় আ.ক.ম মোজাম্মেল হক কুলিয়ায় পানিতে ভাসছে কাফনের কাপড় পরিহিত লাশ সাতক্ষীরায় দুই সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মিথ্যা চাঁদাবাজির মামলা: তদন্ত পিবিআইতে সাতক্ষীরায় খোলপেটুয়া নদীর বেড়ী বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত কলারোয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় আহত ২৫ ইভটিজিং প্রতিরোধে আমাদের করণীয়
রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৫১ অপরাহ্ন

আশাশুনির বলাবাড়িয়া হাইস্কুলে নিয়োগ বাণিজ্যের দুর্নীতির প্রতিবাদে মানববন্ধন

আশাশুনি ব্যুরো / ১০৬
প্রকাশের সময় : শুক্রবার, ২ সেপ্টেম্বর, ২০২২

আশাশুনি সদর ইউনিয়নের বলাবাড়িয়া আমজাদ আলী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে নিয়োগ বাণিজ্য বন্ধ ও দুর্নীতির মাধ্যমে নিয়োগ বন্ধের দাবী মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। শুক্রবার (২ সেপ্টেম্বর) বিকালে স্কুল চত্বরে ও সামনের সড়কে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।


বিভিন্ন শ্লোগান সম্বলিত প্লাকার্ড ও ব্যানার সহকারে মানববন্ধন ও সমাবেশে প্রিয়ব্রত সরকারের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, সাবেক সভাপতি জগদীশ চন্দ্র সরকার, সাবেক সভাপতি শৈলেন্দ্র নাথ মন্ডল, সাবেক সভাপতি গোকুল চন্দ্র সানা, সমরেশ সরকার, সত্যেন্দ্র নাথ মন্ডল প্রমুখ। বক্তাগণ বলেন, স্কুলের প্রধান শিক্ষক দুলাল চন্দ্র সানা ও সভাপতি ভারতীয় ভোটার ইউপি সদস্য মঙ্গল চন্দ্র সরকারের যোগসাজসে সম্পূর্ণ গোপনে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে এবং পত্রিকা আশাশুনিতে আসতে দেওয়া হয়নি। তবে লাবণ্য কুমার মন্ডল জানতে পেরে সাতক্ষীরা থেকে পত্রিকা সংগ্রহ করে স্কুল অফিস কক্ষে প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির উপস্থিতিতে ২০ আগষ্ট আবেদন পত্র জমা দিতে গেলে নিয়োগের জন্য ১০ লক্ষ টাকা দাবী করেন। বিষয়টি সে বিভিন্ন ব্যক্তিকে অবহিত করলে সাবেক সভাপতিসহ কয়েকজন স্কুলে গিয়ে জানতে গেলে টাকা লাগবে বলে জানান হয়। এব্যাপারে লাবণ্য ডিসি মহোদয়, জেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর লিখিত অভিযোগ করেন। কিন্তু না তারা থেমে থাকেনি, ইতিমধ্যে প্রধান শিক্ষকের কন্যা কৃষ্ণা রানী সানা, সভাপতির ভাইপো তন্ময় ও নিমাইয়ের ভাগ্নে জামাই মাধবকে নিয়োগ দিতে আটঘাট বেধে নেমেছেন বলে তারা অভিযোগ করেন। সভাপতির স্ত্রী, ছেলে-মেয়ে সবাই ভারতীয় বাসিন্দা ও ভোটার তারা সবাই ভারতে থাকে। তিনি নিয়োগ দিয়ে মোটা অংকের অর্থের লেনদেন করছেন এটা এখন সর্বমহলে প্রচার হচ্ছে। এঘটনাই কেবল নয়, ইতিপূর্বে প্রধান শিক্ষক একজনকে নিয়োগ দিতে ৯০ হাজার টাকা অগ্রিম গ্রহন করেছিলেন। কিন্তু শেষমেষ তাকে নিয়োগ না দিতে পারায় বর্তমান সভাপতি তার বাড়িতে গিয়ে অপদস্ত করে টাকা আদায় করেছিলেন। এছাড়া জমির হারির টাকা আত্মসাৎ
সহ বিভিন্ন অনৈতিক আচরণের অভিযোগ করেন তারা। এছাড়া সভাপতি ইতিপূর্বে ৬নং ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি ছিলেন উল্লেখ করে আওয়ামীলীগের নাম ভাঙ্গিয়ে অন্যায় অপকর্ম করে যেতে তৎপরতা চালাচ্ছেন। বক্তাগণ, প্রধান শিক্ষক ও সভাপতির সন্তান ও ভাইপোসহ নিয়োগ বাণিজ্য বন্ধে এমপি মহোদয়, সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক, জেলা শিক্ষা অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী অফিাসারের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।


এই শ্রেণীর আরো সংবাদ