অস্ট্রেলিয়াতে অবস্থানরত আফিয়া শারমিনের পক্ষ থেকে দুঃস্থদের মাঝে ত্রান বিতরণ

অস্ট্রেলিয়াতে অবস্থানরত আফিয়া শারমিনের পক্ষ থেকে দুঃস্থদের মাঝে ত্রান বিতরণ

উজ্জ্বল কুমার, কচুয়াঃ বর্তমান করোনা কালীন মহামারীতে বাংলাদেশের নিন্মআয়ের হতদরিদ্র মানুষকে মানবিক সহায়তা সরূপ বাগেরহাট জেলা সদরের গোটাপাড়া ও কচুয়া উপজেলার ধোপাখালি ইউনিয়ন সহ আস-পাসের এলাকায় ব্যক্তি উদ্যোগে ত্রান সামগ্রী বিতরণ করেন অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আফিয়া শারমিন।তিনি সহকারী কমিশনার ভূমি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছে। বর্তমানে তিনি অস্ট্রেলিয়ার মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ নিতে সেখানে অবস্থান করছেন।


তার পক্ষথেকে গতকাল ৩০ এপ্রিল শুক্রবার থেকে ১ মে শনিবার পর্যন্ত প্রতিটি বাড়ি-বাড়ি গিয়ে এসকল ত্রান সামগ্রী বিতরণে সাহায্য করছেন চার সেচ্ছাসেবী।এরা হলেন কচুয়ার মোঃরাজীবুল হক,শোভন দাস এবং বাগেরহাটের আকিব জাবেদ জ্যোতী ও রওশোনারা।
এদিন সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,শতভাগ সুরক্ষা উপকরণ নিশ্চিত করে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে সরাসরি বাড়িতে-বাড়িতে পৌঁছে দিচ্ছে ত্রাণ সহায়তা।এদিন প্রতিটি পরিবারের মাঝে ৫ কেজি চাউল,১ কেজি ডাল,২ কেজি ৫০০ গ্রাম করে আলু,১ লিটার সয়াবিন তেল,১ কেজি শুকনা চিড়া,১ কেজি ৫০০ গ্রাম চিনি,১ প্যাকেট করে খাবার লবন এবং ৫ টি করে মাস্ক বিতরণ করেন তারা।
এ বিষয়ে ত্রাণ বিতরণ কাজে নিয়োজিত সেচ্ছাসেবী শোভন দাসের সাথে কথা হয় তিনি বলেন,মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি থেকে অসহায় মানুষের সাহায্যে সুদূর অস্ট্রেলিয়া থেকে তিনি হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন।আমাদের পক্ষ থেকে তার পাঠানো সাহায্য সঠিকভাবে বন্টনে সহায়তা করছি।তিনি আরো বলেন,যদি এই মানবিক কাজে বিদেশি স্পন্সরদের অন্তভূক্ত করা সম্ভব হয় তবে বাংলাদেশে  অসহায় হতদরিদ্র মানুষের জীবনমান উন্নয়নে আরো সহায়তা করা সম্ভব হবে।


এ সময় তিনি উল্লেখ করেন,বাগেরহাট সদর ও কচুয়া উপজেলায় এ দু’দিনে মোট ৩৫ টি পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিয়েছেন তারা।এছাড়াও খুলনার দৌলতপুর এলাকায় তাদের এধরনের কার্যক্রম পরিচালনা হয়েছে।শুধু তাই নয় ঢাকার মিরপুর ও গোপালগঞ্জে আরো একটি ইউনিট এ খাদ্য সহায়তা বিতরণে কাজ করছে।সব মিলিয়ে প্রথম ধাপে এ সকল এলাকায় সর্বমোট ১ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার ত্রাণ সহায়তা হিসাবে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে।
করোনা কালীন পরিস্থিতিতে রমজানের ভিতর এমন খাদ্য সহায়তা পেয়ে এসকল হতদরিদ্র পরিবারে মুখে যেন একচিলতে হাসি ফুটে উঠেছে।আর দেশকে ভালোবেসে দেশের মানুষের জন্য এমন সাহায্য পাঠানোয় অনেকেই তার প্রশংসা করেছেন।এমন মানবিক দৃষ্টি ভঙ্গি যেন আগামীতেও অব্যহত থাকে এমটি আসাও করেন অনেকে।

Print Friendly, PDF & Email
এই সংবাদটি আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করুন